এক দিন আগেই  একটি কার্টুনের ছবি পোস্ট করেছিলেন। কিন্তু তার পরিমাণ যে এত ভয়ঙ্কর হতে পারে তা কল্পনাও করতে পারেনি দীপিকা সিং রাজাওয়াত। কাঠুয়ার নির্যাতিতার নিহতের পরিবারের আইনজীবী ছিলেন তিনি। আবারও হুমকির মুখে পড়তে হয়েছে তাঁকে। রাতের অন্ধকারে তাঁর বাড়ির সামনে জড়ো হওয়া এক দল মানুষ দীপিকার উদ্দেশ্যে স্লোগান দেয়  তেরি কবর খুদেগি (দীপিকা তোর কবর খোঁড়া হবে)। আর এই ঘটনার পর কিছুটা হলেও আস্বস্তিতে পড়ে জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের উদ্দেশ্যে একটি ট্যুইট করেন তিনি। সেখানে তিনি বলেন তাঁর বাড়ির সামনে এক  দল লোক জড়ো হয়েছে। তারা হুমকি দিচ্ছে। ঘরে থাকলেও নিজেকে নিরাপদ বলে মনে করছেন না তিনি। যেকোনও মুহূর্তে তাঁর ক্ষতি হতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি।

জঙ্গিদের বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল পাকিস্তান, বিস্ফোরণের প্রকৃতি নিয়ে তৈরি হয়েছে রহস্য ...

বিশ্বের সর্বোচ্চ যিশুর মূর্তি নির্মাণের কাজে বাধা, বিপাকে পড়েছেন কংগ্রেস নেতা ডিকে শিবকুমার ...  

২০১৮ সালে কাঠুয়ার ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় নিহত নির্যাতিতার হতে সওয়াল করেন দীপিকা সিং রাজাওয়াত। আর সেই সময় একাধিকবার হুমকির মুখে পড়তে হয়েছিল তাঁকে। মামলা ছেড়ে দেওয়ার জন্যও চাপ তৈরি করা হয়েছিল। কিন্তু নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থেকেছিলেন তিনি। কোনও রকম চাপের কাছে মাথা নত করেননি। সেই সময় তাঁর এই সাহস আর অদম্য মনোভাব তাঁকে খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছে দিয়েছিল। কিন্তু সমালোচনাও শুনতে হয়েছিল। নিহত কিশোরীর বাবা অভিযোগ করেছিলেন দীপিকা নিজের প্রচারের জন্যই এই মামলা গ্রহণ করেছিলেন। একশো বার শুনানর মধ্যে তিনি মাত্র দুবারই হাজির থেকেছিলেন। যদিও প্রতিবাদ জানিয়ে দীপিকা সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে বলেছিলেন যখন এই পরিবারটির পাশে কেউ ছিল না তখন তিনি একা তাদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। এখন পরিবারটির শুভাকাঙ্খীর সংখ্যা অনেক বেশি। তাই পরিবারটি তাঁর দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। কিন্তু সেই সময় থেকেই দীপিকার বিরুদ্ধে একটি জনমত তৈরি হয়েছিল। তা যে এখনও রয়ে গিয়েছে তার প্রমাণ মিলল আবারও। 

সোমবার নবরাত্রি উপলক্ষ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি বার্তা দিয়েছিলেন দীপিকা সিং রাজাওয়াত। তিনি দুটি ছবি পোস্ট করেছিলেন, বিড়ম্বনা ক্যাপশান দিয়ে। একটি ছবিতে লেখা ছিল অন্যদিন। যেখানে একটি পুরুষ এক মহিলার দুটি পা ধরে টানছে। যা নারী নির্যাতনের প্রতীক বলেই মনে করছেন নেটিজেনরা। আর অন্যছিবর হোডিং নবরাত্রি। সেখানে দেখা যাচ্ছে একটি পুরুষ মহিলার দেবীর পায়ে অর্ঘ্য নিবেদন করছেন। যা মাতৃ আরাধনার প্রতীক। আর এই ছবি পোস্ট করার পরই নেটিজেনদের একাংশ তাঁর বিরুদ্ধে সরব হয়। অনেকেই বলেছেন দীপিকা হিন্দু ও তাদের উৎসবকে কলঙ্কিত করছেন। অনেকে আবার দীপিকাকে সমর্থনও করেছেন। কিন্তু এই পোস্টের মাত্র এক দিন পরেও তাঁর বাড়ি বয়ে এসে হুমকি দিয়ে যায় এক দল উন্মত্ত জনতা।