দিল্লি থেকে ধৃত চিনা প্রতারকের বিরুদ্ধে রীতিমত জাল বিছাতে শুরু করেছে প্রশাসন। এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট ইতিমধ্যেই চিনা নাগরিক লুও সাংএর বিরুদ্ধে প্রিভেনশন অব মনিলন্ডারিং অ্যাক্ট বা পিএমএলএ-র অধীনে মামলা দায়ের করেছে। প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা আর্থিক তছরুপে জড়িয়ে রয়েছে। 

ইডি সূত্রের খবর ২০১৮ল সালের ১৩ সেপ্টেম্বর দিল্লির পুলিশের দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতেই মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত লুও সাংকে হাওয়ালা সংযোগ ও আর্থিক তছরুপ নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এছাড়াও একাধিক অভিযোগ রয়েছে লুও সাংএর বিরুদ্ধে। 

দীর্ঘ দিন ধরেই ভারতের মাটি ব্যবহার করে একের পর এক দূর্ণীতিমূলক কার্যকলাপে জড়েয়েছে এই ব্যক্তি। তদন্তকারীদের তরফ থেকে পাওয়া খবরে জানান গেছে ভারতের মাটিতে থেকেই তিব্বতি ধর্মগুরু দলাইলামা সংক্রান্ত তথ্যও জোগাড় করছিল লুও। আর সেই জন্য খরচ করেছিল লক্ষ লক্ষ টাকা। লুও-র কী অভিসন্ধি ছিল তা জানতেও তৎপর হয়েছে তদন্তকারীরা। 

একটি সূত্রের খবর তদন্তকারীরা জানতে চাইছে কার হয়ে কাজ করত লুও। চিনা এই নাগররিককে এর আগেও এই চিনা নাগরিক গুপ্তচর বৃত্তির অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিল। একটি সূত্র বলছে নেপাল সীমান্ত ব্যবহার করে ভারতীয় ভূখণ্ডে প্রবেশ করেছিল লুও স্যাং। কিন্তু তারপর থেকেই বেআইনিভাবে ভারতীয় পাসপোর্ট, আধার কার্ড ও প্যান কার্ড তৈরি করেছিল। ভারতীয় পরিচয়পত্র পাওয়ার জন্য এক মিজো মহিলাকে বিয়েও করেছিল লুও। কিন্তু ভারতে সে তার কাজকর্ম চালাত চার্লি পেয়ং নাম নিয়ে।

৩ মিনিটে ২ জনের প্রাণ কাড়েছে করোনার জীবাণু, নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩ কোটিরও বেশি 

চিনা আগ্রাসনের খবর করার পরই নেপালে সাংবাদিক খুন, বাগমতীর জল থেকে উদ্ধার দেহ .

নেতৃত্ব নিয়ে আবার প্রকাশ্যে কংগ্রেসের বিবাদ, 'ফেসবুককাণ্ড' ইস্যু করে ধাপাচাপা দেওয়ার চেষ্টা ...

তদন্তকারীদের সূত্রে জানাগেছে হাওয়ালা কেলেঙ্কারিরতে লুওর সঙ্গে বেশ কয়েকজন চিনা নাগরিকের বিষয়ে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। ভারতের একাধিক ব্যাঙ্ক কর্মী জড়িয়ে রয়েছে বলেও সূত্রের খবর। কারণ প্রায় ৪০টি অ্যাকাউন্ট বানিয়ে প্রতারণাচক্র চালাচ্ছিল লুও।