ফিরে এল কলকাতার স্টিফেন-কোর্টের ভয়াল স্মৃতি। যদিও দমকলের তৎপরতায়ে এ যাত্রায় বেঁচে গিয়েছে শতাধিক প্রাণ।  ঘটনার সূত্রপাত সোমবার দুপুর ৩টে নাগাদ। মুন্বই-এর বান্দ্রার এমটিএনএল ভবনে হঠাৎ আগুন লাগার খবর পাওয়া যায়। ঘটনার সময় প্রায় ১০০ জন মানুষ একটি ব্যালকনিতে আটকা পড়েছিলেন। এমটিএনএল-এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর এ কে শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, সন্ধ্যে ৬টার মধ্যে প্রায় সকলকেই উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। এখনও অবধি কোনও প্রাণহানির বা অগ্নিকান্ডের জেরে কারোর আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।  

অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়েই তৎপর হয়ে ওঠে দমকল বাহিনী। ১৪টি ইঞ্জিন এবং একটি রোবট ভ্যান সহ অত্যাধুনিক যন্ত্রের সাহায্যে অল্প সময়ের মধ্যেই লেভেল ৪ শ্রেণির অগ্নিকাণ্ড নিয়ন্ত্রণে আনার কাজ শুরু করে দেয় তারা। গোটা অভিযানে প্রায় ১৭৫ জন দমকল কর্মী অংশগ্রহণ করেন। 

নয়-তল বিশিষ্ট বিল্ডিংটির তৃতীয় এবং চতুর্থ ফ্লোরেই মূলত আগুন লেগেছিল বলে জানা গিয়েছে। যদিও, আগুন লাগার কারণ এখনও অজানা। অনুমান করা হচ্ছে শর্ট-সার্কিট থেকে আগুন লেগে  থাকতে পারে। সপ্তাহের প্রথম দিন হওয়ার দরুন ঘটনা ঘটার সময় বিল্ডিংটিতে প্রচুর মানুষ উপস্থিত ছিলেন। প্রাণের ভয় অনেকেই ব্যালকনিতে জড়ো হন। মুহূর্তের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে গোটা এলাকায়। যদিও দমকলের সময়মত উপস্থিতি বড়সড় কোন বিপত্তি ঘটতে দেয়নি বলেই মনে করছেন অনেকে। আগুনের করাল গ্রাস ভয়াবহ রূপ নেওয়ার আগেই সবাইকে সুরক্ষিত ভাবে নিচে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয় দমকল। দমকল সূত্রে জানা গিয়েছে তারা অত্যাধুনিক প্রযুক্তির হাইড্রলিক ল্যাডার এবং ক্রেন ব্যাবহার করে এক্কেবারে ৬-৭ জন করে মানুষকে উদ্ধার করে নিচে নামিয়ে আনেন। আগুন আপাতত নিয়ন্ত্রণে, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনও জানা যায়নি।