সোমবার  পর্যন্ত অসমে মৃতের সংখ্যা বেড়ে গিয়ে হল ১৭০। সরকারি সূত্রের খবর দুই রাজ্যে অন্তত এক কো টি মানুষ ঘরছাড়া। এদিন বন্যার জেরে বিহারের মৃতের সংখ্যা বেড়ে গিয়ে দাঁড়াল ১০৪-এ, পাশাপাশি অসমে এখনও পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ৬৬ জন।
 
সূত্রের খবর, ভয়াবহ এই বন্যার কবলে পড়েছেন বিহারের ১২টি জেলার প্রায় ৭৬.৮৫ লক্ষ মানুষ।  পাশাপাশি অসমে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন ৩০.৫৫ লক্ষ মানুষ। অসমের কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যানে অন্তত ১৮৭ যন্তুর প্রাণ গিয়েছে বলে খবর। কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যান যে প্রাণীটির জন্য বিখ্যাত সেই এক শৃঙ্গ গণ্ডারেরও মৃত্যুর খবর উঠে এসেছে। এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী ১৬টি গণ্ডারের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। 

বন্যার কারণে চাষের জমিরও ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ২,২৮৩টি গ্রামে প্রায় ১.১৪ লক্ষ হেক্টর চাষের জমি বন্যার কারণে এখন জলের তলায়। গত কয়েকদিন ধরে ব্রহ্মপুত্র নদী যেভাবে বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে তাতেই প্রমাদ গুনেছেন অসমের সাধারণ মানুষ। পাশাপাশি বিহারের মানুষও বন্যার জেরে ব্যপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। রাজ্যের একাধিক এলাকায় ত্রাণ শিবির নির্মাণ করা হয়েছে। সাধারণ মানুষ এখন সেইসব ত্রাণ শিবিরেই অস্থায়ীভাবে আশ্রয় নিয়েছেন। অসমে বৃষ্টিপাত খানিকটা কম হওয়ার কারণে পরিস্থিতি খানিকটা নিয়ন্ত্রণে এলেও, এখনও পুরোপুরিভাবে বিপদ কাটেনি।