ইয়েতি নিয়ে সাহিত্য়ে বা চলচ্চিত্রে কত রকমের গল্প রয়েছে। বরফে ঢাকা দেশে নাকি এদের বাস। কিন্তু কোনও দিনও আজ পর্যন্ত কেউ নিজের চোখে দেখে উঠতে পারেনি ইয়েতি। কল্পনাতেই থেকে গিয়েছে দৈত্য়াকার সেই প্রাণী। 

কিন্তু এবার সত্য়ি ইয়েতির সন্ধান মিলল? খোদ ভারতীয় সেনা এবার সেই দাবি করেছে। হিমালয়ের মাকালু বেস ক্য়াম্পের কাছে বরফাবৃত পথে দেখা মিলেছে সেই ইয়েতিরই পায়ের ছাপ। পায়ের ছাপের ছবি টুইটারে পোস্টও করেছে ভারতীয় সেনা। 

ছবিতে দেখা যাচ্ছে বরফের উপর সারি দেওয়া পায়ের ছাপ, ঠিক যেন কেউ হেঁটে গিয়েছে। সেই পায়ের ছাপের মাপ লম্বায় 31ইঞ্চি ও চওড়ায় 15 ইঞ্চি। প্রত্য়েকটা পায়ের ছাপ অনেকটা তফাতে পড়েছে, যা দেখে বোঝা যায় যে সেই প্রাণীর চেহারা কত বড় হতে পারে। পায়ের ছাপগুলি খুব গভীরও। একেবারে বরফের চাদরে বসে গিয়েছে। 

ভারতীয় সেনা দাবি করেছে, নেপাল-চিন সীমান্তে মাকালু বেস ক্য়াম্পের কাছে 9 এপ্রিল অভিযানে যান সেনা পর্বতারোহীদের একটি দল। তখনই এই বিশাল পায়ের ছাপ দেখতে পান তাঁরা। মাকালু-বরুণ জাতীয় পার্কের এখানে আগেও ইয়েতির দেখা পাওয়া গিয়েছিল বলে টুইটে জানিয়েছে ভারতীয় সেনা। 

কাল্পনিক একটি প্রাণী নিয়ে ভারতীয় সেনা কীভাবে এত নিশ্চিত হয়ে কথা বলছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। আর ভারতীয় সেনা সোশ্য়াল মিডিয়ায় এই পোস্ট করায় কাল্পনিক এই প্রাণীর অস্তিত্বের উপর বিশ্বাস তৈরি হয়েছে সাধারণ মানুষের।

সাধারণত পর্বতারোহীরা এবং বিজ্ঞানীরা এর আগে ইয়েতি নামক এই প্রাণীর অস্তিত্ব বার বার অস্বীকার করেছে। তাঁরা দাবি করেছেন ওরকম নির্জন পাহাড়ে এক ধরনের ভয় কাজ করে, যার ফলে কল্পনায় ঘুরে বেড়ায় এই ধরনের চিন্তা। কিন্তু নেপাল সিকিম বা তিব্বত এলাকার মানুষ রীতিমতো বিশ্বাস করে পাহাড়ে ইয়েতি থাকে। তাদের মধ্য়ে একধরনের ভয়ও কাজ করে। কিন্তু  তার কোনও সত্য়তা আজ পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাই কেবল কল্পনার আর গল্পে থেকে গিয়েছে ইয়েতি।  কিন্ত এবার এই বিশাল আকারের পায়ের ছাপ দেখে নতুন করে মানুষের বিশ্বাস তৈরি হয়েছে এই অতিমানবের উপরে। 

ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়েছে এই ছবি। নেটিজেনদের মধ্য়েও উত্তেজনা শুরু হয়ে গিয়েছে ইয়েতির অস্তিত্ব নিয়ে। অনেকেই আবার নিজের চোখে পুরো ইয়েতিকে দেখতে চান বলেও ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। 

অন্যদিকে সেনার পোস্ট করা ছবি খতিয়ে দেখছেন বিজ্ঞানীরা। সেনাও জানিয়েছে, ইয়েতি নিয়ে আরও তথ্য় ও ছবি তারা প্রকাশ করবে।