সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসে তৃতীয়বার, শুনানি চলছে মহিলা বিচারপতিদের একমাত্র বেঞ্চে

| Dec 01 2022, 10:41 PM IST

Supreme Court

সংক্ষিপ্ত

সর্বোচ্চ আদালতের ইতিহাসে এই তৃতীয়বারের মতো একটি সর্ব-মহিলা বেঞ্চ গঠন করা হল। দুই বিচারপতির একটি বেঞ্চ বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টের ১১ নম্বর আদালতে এসব বিষয়ে শুনানি করছে।

সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসে তৃতীয়বারের মতো বৃহস্পতিবার শুধুমাত্র মহিলা বিচারপতিদের বেঞ্চে কিছু মামলার শুনানি হল। ভারতের প্রধান বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় বৃহস্পতিবার বৈবাহিক বিরোধ এবং জামিন সংক্রান্ত বিষয়ে স্থানান্তরের আবেদনের শুনানির জন্য বিচারপতি হিমা কোহলি এবং বিচারপতি বেলা এম ত্রিবেদীর সমন্বয়ে একটি সর্ব-মহিলা বেঞ্চ গঠন করেছেন।

বিবাহ ও জামিন সংক্রান্ত বিষয়ে শুনানি

Subscribe to get breaking news alerts

সর্বোচ্চ আদালতের ইতিহাসে এই তৃতীয়বারের মতো একটি সর্ব-মহিলা বেঞ্চ গঠন করা হল। দুই বিচারপতির একটি বেঞ্চ বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টের ১১ নম্বর আদালতে এসব বিষয়ে শুনানি করছে। বেঞ্চে তালিকাভুক্ত ৩২টি বিষয় রয়েছে, যার মধ্যে ১০টি বৈবাহিক বিরোধ সম্পর্কিত বদলির আবেদন রয়েছে, যার পরে ১০টি জামিনের বিষয় রয়েছে৷

২০১৩ সালে প্রথম মহিলা বেঞ্চ প্রতিষ্ঠা

প্রথম মহিলা বেঞ্চটি ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যখন বিচারপতি জ্ঞান সুধা মিশ্র এবং রঞ্জনা প্রকাশ দেশাইয়ের একটি বেঞ্চ গঠিত হয়েছিল, তারপরে ২০১৮ সালে বিচারপতি আর ভানুমথি এবং ইন্দিরা ব্যানার্জির একটি বেঞ্চ গঠিত হয়েছিল। বর্তমানে শীর্ষ আদালতে তিনজন মহিলা বিচারপতি রয়েছেন যার মধ্যে রয়েছেন বিচারপতি কোহলি, বি ভি নাগরত্ন এবং ত্রিবেদী। বিচারপতি নাগরত্নও ২০২৭ সালে প্রথম মহিলা প্রধান বিচারপতি হওয়ার লাইনে রয়েছেন। শীর্ষ আদালতে বর্তমানে সিজেআই সহ ২৭ জন বিচারকের সংখ্যা রয়েছে, যেখানে অনুমোদিত সংখ্যা ৩৪ জন বিচারক।

কলেজিয়ামের সুপারিশ নিয়ে কেন্দ্র ও এসসি মুখোমুখি

এদিকে, কলেজিয়ামের সুপারিশ অনুযায়ী বিচারক নিয়োগ না করা নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট এবং কেন্দ্রীয় সরকারের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছে। নিয়োগের ফাইল আটকে রাখায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সুপ্রিম কোর্ট।

উল্লেখ্য, সুপ্রিম কোর্ট উচ্চতর বিচার বিভাগের বিচারক হিসেবে নিয়োগের জন্য কলেজিয়াম দ্বারা সুপারিশ করা নামগুলি পরিষ্কার করতে কেন্দ্রীয় সরকার বিলম্ব করছে বলে অভিযোগ তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। বলেছে, এটি নিয়োগের পদ্ধতিতে কার্যকরভাবে হতাশ করবে। বিচারপতি এসকে কৌল ও এএস ওকার একটি বেঞ্চ বলেছে যে শীর্ষ আদালতের তিন বিচারপতর বেঞ্চ নিয়োগ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করার সময়সীমা নির্ধারণ করেছে। এক্ষেত্রে সময়সীমা মেনে চলা জরুরি।

বিচারপতি কৌল পর্যবেক্ষণ করেছেন যে সরকার এই সত্যে অসন্তুষ্ট যে জাতীয় বিচার বিভাগীয় নিয়োগ কমিশন আইন জমা জেয়নি। তবে এটি আইন মেনে না চলার কারণ হতে পারে না। শীর্ষ আদালত ২০১৫ সালের রায়ে NJAC আইন এবং সংবিধান (৯৯ তম সংশোধন) আইন, ২০১৪ বাতিল করেছিল, যার ফলে সাংবিধানিক আদালতে বিচারক নিয়োগের বিদ্যমান বিচারকদের কলেজিয়াম ব্যবস্থা পুনরুজ্জীবিত হয়েছিল।