একুশ শতক হল ব্যস্ততার যুগ। সবাইকে পিছনে ফেলে সকলেই এগিয়ে যেতে চাইছে। কীভাবে সময় বাঁচানো যায় তার জন্য সকলেই সবসময় চেষ্টা করে চলেছে। তাই বলে ঈশ্বরের উপাসনা তো বন্ধ করা যায় না। কিন্তু তাতে সময়ের কাটছাঁট করা যেতেই পারে। অন্তত অনেকেই এরকমটা ভাবেন। চলার পথে দেখা যায়, অনেকেই হয়তো রাস্তার পাশের ধর্মস্থলের দানপাত্রে পয়সা ছুঁড়ে দিলেন। তারপর দূর থেকেই কোনও মতে একটা প্রণাম। কিন্তু, ঈশ্বরের উপাসনায় সময় কাটছাঁট করা যায় কি?

সম্প্রতি নেটদুনিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যা দেখলে এরপর থেকে 'শর্টকাট'-এ ঈশ্বরের উপাসনা করার আগে সকলেই দু মিনিট ভাববেন। ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছে এক তরুণীকে। সময়ের অভাবে সে এক শিব মন্দিরের বাইরে থেকে স্কুটি-তে বসেই প্রণাম সারতে গিয়েছিলেন। আর তাতেই ঘটল বিপত্তি। পুরো ঘটনাটিই ধরা পড়ে মন্দিরের ভিতরে রাখা সিসি ক্যামেরায়। সেই ক্যামেরার ফুটেজটিই ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।   

ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিও-তে দেখা যাচ্ছে, ওই তরুণী স্কুটিতে বসেই শিবমন্দিরের বাইরে থেকে হাত জড়ো করে ভগবান শিব-কে প্রণাম করছেন। তারপর তিনি স্কুটিটি চালিয়ে সেখান থেকে চলে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু, স্কুটির ইঞ্জিন চালু করে অ্যাক্সিলেটর ঘোরাতেই প্রচন্ড বেগে স্কুটিটি মন্দিরের চৌকাঠে ধাক্কা মারে। তারপর টাল সামলাতে না পেরে স্কুটি সহ সোজা মন্দিরের দরজা দিয়ে ভিতরে এসে পড়েন তিনি। ঠিক মন্দিরের ভিতচরে রাখা একটি পাথরের ষাঁড়ের মূর্তির পায়ের নিচে।

ভিডিও দেখে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই বলছেন, বাইরে থেকে কোনওরকমে প্রণাম করে চলে যাওয়ার চেষ্টা করায় খেপে গিয়েছিলেন ভোলানাথ। ঠিক ওই তরুণীকে টেনে নিয়ে তিনি নিজের পদতলে ফেললেন। তাদের দাবি, এই ভিডিও থেকেই শিক্ষা নেওয়া উচিত যতই দৌড়াদৌড়ি থাক, তাড়া থাক, জীবনে কিছু কিছু সময় দৌড় থামাতেও হয়। তরুণীর ওই দশা দেখে নেটদুনিয়ায় হাসাহাসি থামছে না।