সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ভিডিওই পুত্রবধূর মুখোশটা এক ঝটকায় খুলে দিল। আর সেই ভিডিও দেখেই  নড়েচড়ে বসে হরিয়ানা পুলিশ। রীতিমত উদ্যোগ নিয়ে শাশুড়িতে মারধর করার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় পুত্রবধূকে। হরিয়ানার সোনপতের পুত্রবধূ এখন রয়েছে বন্দি। আর কিছুটা হলেও হাত কামড়াচ্ছে নিজের সন্তানদের নিয়ে। কারণ সে যখন তাঁর শাশুড়িকে মারধর করছিল সেই সময়ই  তার ছবি রেকর্ডিং করিছেল তার শিশু সন্তান। পরে সেই ছবিই ভাইরাল হয়ে যায় নেট দুনিয়ায়। 

সোনপতের বাসিন্দা সরোজ। তার ৮২ বছরের শাশুড়ি সুখদেই।  ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে সরোজ তাঁর শাশুড়িতে রীতিমত মারধর করছে। প্রায় ৪৪ সেকেন্ডের এই ভিডিওতে রয়েছে অভিভাবকদের লাঞ্ছনার গল্প। যা তুলে ধরেই তাঁর নাতি বা নাতনি। শিশু হাতে ছবি তুলতে তুলতে ঠাকুমার আক্রান্ত হওয়া কিছুটা হয়ত বিব্রত করেছিল তার মনকে।  ভিডিওটির মাঝখানের অংশ বেশ কেঁপে গিয়েছিল। পরিবারেরে কোনও আত্মীয় ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিয়েছেন বলে প্রাথমিক তদন্তে মনে করছে পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানান হয়েছে নির্যাতিত মহিলার ছেলে রামমনোহর মেনে নিয়েছেন তাঁর স্ত্রী আর মায়ের মধ্যে অশান্তির কথা। তিনি জানিয়েছেন তাঁর স্ত্রী মাঝে মাঝেই মারমুখী হয়ে উঠত। তাঁর মাকে যে মারধর করত সেকথাও স্বীকার করেছেন তিনি। বেশ কয়েক বছর ধরেই বৃদ্ধ শাশুড়িকে মারধর করত পুত্রবধূ। 

শাশুড়িকে মারধরের অভিযোগে ইতিমধ্যেই পুত্রবধূকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আর এই ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে পুত্রবধূর মাকেও। কারণ সেই মহিলাও সুখদেই ওপর অ্যাচার চালাত।  ধৃতের বিরুদ্ধে মারধর করা, ভয়দেখানোসহ একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন ভারতীয় জনতা পার্টির দিল্লি এক নেতা। বেশ কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যক্তিও সোশ্যাল মিডিয়ায় এইভিডিটি রিট্যুইট করেন। পাশাপাশি অমানবিক ঘটনা হিবেসেও বর্ণনা করেন।