বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) পুলিশের সামনেই জামিয়া নগরে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সিক্ষার্থীদের সিএএ বিরোধী মিছিলের উপর গুলি চলে। ১৭ বছরের গোপাল নামে এক দৃষ্কৃতী একটি দেশি পিস্তল থেকে গুলি ছুঁড়ে আহত করেন শদাব নামে এক ছাত্র-কে। বন্দুক হাতে জামিয়ার ছাত্রদের তাঁর হুমকি দেওয়ার ছবি ভাইরাল হয়েছে। সেই ছবি দেখে অনেকেরই নাথুরাম গডসের কথা মনে পড়েছিল। এবার গডসের সংগঠন, হিন্দু মহাসভা জামিয়ার বন্দুকবাজ গোপালকে বিশেষ সম্মান দিতে চলেছে।

শুক্রবার, হিন্দু মহাসভার বিশিষ্ট নেতা অশোক পাণ্ডে জানিয়েছেন, গোপাল-কে নিয়ে তাঁদের সংগঠন গর্বিত। ওই দুষ্কৃতীকে তিনি বলেছেন, 'গডসের মতো প্রকৃত দেশভক্ত'। সে জামিয়া ক্যাম্পাসে যে দেশবিরোধী কার্যকলাপ চলছে তা বন্ধ করতে চেয়েছিল। এর জন্য গুলি চালানোর ঘটনাকেও তিনি সমর্থন করেছেন। সরাসরি বলেছেন, শারজিল ইমাম-দের মতো জেএনইউ, জামিয়া বা আলিগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে যেসব দেশদ্রোহীকরা রয়েছে তারা গুলি খাওয়ারই যোগ্য। কাজেই সাধারণ হত্যাকারী আর দেশের জন্য লড়াই করা ব্যক্তিদের এক করে দেখলে চলবে না।

আশ্চর্য কাকতালীয়, ৭১ বছর আগে ১৯৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারি এই হিন্দু মহাসভারই নেতা নাথুরান গডসে গুলি চালিয়ে হত্যা করেছিল জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীকে। ১৯৬৩ সালে মহাত্মার জীবন নিয়ে তৈরি ব্রিটিশ ফিল্মে গান্ধী হত্যার দৃশ্যে উদ্যত বন্দুক হাতে নাথুরাম গডসের ছবিটি দারুণ জনপ্রিয় হয়েছিল। অনেকে ওই ছবিকে গডসের আসল ছবি বলেও মনে করেন। সেই ছবির সঙ্গে গোপালের বন্দুক হাতে শাসানোর ছবির দারুণ মিল বলে জানিয়েছেন নেটিজেনরা।