এই বছর সাধারণতন্ত্র দিবসের দিনে আটারি সীমান্ত যৌথ কুচকাওয়াজ হবে না। এর আগে প্রায় প্রত্যেক বছরই ভারত ও পাকিস্তান দুই সীমান্তে যৌথ প্যারেড করত, যা দুই দেশের দর্শকরা উপভোগ করতে। করোনাভাইরাসের সতর্কতার কারণে চলতি বছর কুচকাওয়াজে দর্শকদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি। 

সীমান্ত সুরক্ষা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানান হয়েছে প্রজাতন্ত্র দিবসের দিনে আটারি সীমান্তে কোনও যৌথ কুচকাওয়াজ হবে না। করোনাভাইরাসের কারণে দর্শক প্রবেশেরও অনুমতি দেওয়া হবে না। তবে নির্ধারিত সময় ভারতের পতাকা নিচে নামানোর যে প্রথা রয়েছে তা পালন করা হবে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে গত ৭ মার্চ থেকেই আটারি সীমান্তে কোনও দর্শককে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি। 

লাদাখের পর এবার অরুণাচলে ড্রাগনদের নজর, তৈরি হয়েছে একটি আস্ত গ্রাম ...

সন্তান নাকি 'ছাগল', তাই ৮ মাসের শিশুকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ মায়ের বিরুদ্ধে ...

সূত্রের খবর বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে পাকিস্তান দর্শকদের অনুমতি দিচ্ছে ভারতীয় দিক থেকে কুচকাওয়াজ দেখা যাবে বলে। কিন্তু সীমান্ত ভারত ও পাকিস্তানের সম্পর্ক খুব একটা সন্তোষজনক নয়। আর সেই কারণে বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে ভারত পাকিস্তানককে মিষ্টিও পাঠাচ্ছে না।  প্রথা অনুযায়ী ভারত বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে পাকিস্তানকে মিষ্টি উপহার পাঠায়। আটারি সীমান্ত দিয়েও পাঠান হত মিষ্টি।