মহামারীর আবহেই উদযাপিত হচ্ছে দেশের ৭৪ তম স্বাধীনতা দিবস। লাল কেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সপ্তম বারের জন্য জাতির উদ্দেশে ভাষণও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। করোনার সময়েই দেশকে আত্মনির্ভর হয়ে ওঠার বার্তা দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী। সেই বার্তাই লালকেল্লা থেকে আরও একবার শোনাগেল মোদীর কন্ঠে।

 ২০১৯-এর স্বাধীনতা দিবসে আগামী ৫ বছরের মধ্যে দেশের অর্থনীতি ৫ লক্ষ কোটি টাকা করার বার্তাও দিয়েছিলেন মোদী। কিন্তু করোনার প্রকোপে ধাক্কা খেয়েছে দেশের আর্থিক বৃদ্ধি। এমন পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী কোন দিশা দেখান সে দিকে তাকিয়ে ছিল গোটা দেশ। 

আরও পড়ুন: স্বাধীনতা দিবসের দিনেই জন্মেছিলেন এই বাঙালি মনীষী, লালকেল্লায় স্মরণ করলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী

৭৪তম স্বাধীনতা দিবসে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে আত্মনির্ভর ভারত গড়ার ডাক দিলেন প্রধানমন্ত্রী। এই স্বাধীনতা দিবস থেকেই আত্মনির্ভর ভারত ১৩০ কোটি ভারতীয়ের মন্ত্র হয়ে উঠুক বলে আহ্বান জানান তিনি। গোটা দেশের কাছে আবারও তিনি তাঁর স্লোগান 'ভোকাল ফর লোকালের' প্রতি মনযোগ দিতে আবেদন জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'প্রত্যেক ভারতীয়ের স্বপ্ন স্বনির্ভর ভারত গড়ে তোলা। এই স্বপ্নকে এবার আমরা বাস্তবে পরিণত করব।' তিনি আরও বলেন, 'এই করোনা অতিমারীর সময়ে ১৩০ কোটি ভারতীয় আত্মনির্ভর ভারত গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেছেন। আমি আত্মবিশ্বাসী যে ভারত তার স্বপ্নকে অনুভব করতে পেরেছে। আমরা একবার যখন একটা কিছু করব বলে ঠিক করি, তখন তা পূরণ না করা পর্যন্ত আমরা থামি না। আমার সহ-নাগরিকদের ক্ষমতা, আত্মবিশ্বাস এবং দক্ষতার ওপর আমার পূর্ণ আস্থা আছে।'

তাঁর মেক ইন ইন্ডিয়া স্লোগানে এদিন আরও একটু সংযুক্ত করে নমো বলেন, 'মেক ইন ইন্ডিয়া, মেক ফর ওয়ার্ল্ড।' প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'এফডিআই বা প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। এফডিআই-এ ১৮ শতাংশ গ্রোথ হয়েছে। এমনকি এই করোনা অতিমারীর মধ্যেও ভারতে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে। এর থেকে এটাই প্রমাণিত হয় যে আমাদের ক্ষমতার ওপর গোটা বিশ্বের আস্থা রয়েছে।

আরও পড়ুন: রাজঘাটে মহাত্মা গান্ধীকে শ্রদ্ধা থেকে লালকেল্লায় ভাষণ, ছবিতে দেখুন প্রধানমন্ত্রীর স্বাধীনতা দিবস পালন

এদিন লালকেল্লা থেকে প্রত্যেক ভারতীয় জন্য হেলথ আইডির ঘোষণা করেন মোদী। প্রত্যেক ভারতীয়ের পরিচিতির জন্য যেমন আধার কার্ড রয়েছে, ঠিক তেমনই প্রত্যেকের স্বাস্থ্য পরিচিতির জন্য আলাদা করে হেলথ আইডি দেওয়া হবে। স্বাধীনতা দিবসে ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী জানান, প্রত্যেক ভারতীয়ের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত রিপোর্টের ডিজিটাইজেশন করা হবে এই প্রকল্পে। কোনও চিকিৎসক কোন ধাপে নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে দেখেছেন, কোন কোনও চিকিৎসা তিনি পেয়েছেন, সেই তথ্যও থাকবে সেখানে। পরবর্তী পর্যায়ে এই প্রকল্পে ই-ফার্মেসি এবং টেলিমেডিসিনকেও যুক্ত করা হবে।

এদিন মোদীর ভাষণে ছিল নারীশক্তির গুণগানও। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মহিলাদের নিয়োগ ও স্বনিযুক্তির ক্ষেত্রে সমঅধিকার প্রদানে সংকল্পবদ্ধ দেশ। এখন দেশের মহিলারা যুদ্ধবিমান চালিয়ে আকাশ স্পর্শ করছেন।

সংসদে ২০২০-২১ এর বাজেট ভাষণে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন জানিয়েছিলেন যে, মেয়েদের বিয়ের ন্যূনতম বয়সসীমা ১৮ থেকে বাড়িয়ে ২১ বছর করার বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে এ ব্যাপার একটি টাক্স ফোস্ক গঠনের কথা জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন যে, ছয় মাসের মধ্যে এ ব্যাপারে রিপোর্ট জমা পড়বে। এদিন ৭৪ তম স্বাধীনতা দিবসে লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জাতির উদ্দেশে ভাষণেও উঠে এল সেই প্রসঙ্গ। মহিলাদের ক্ষমতায়ন সম্পর্কে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মেয়েদের বিয়ের ন্যুনতম বয়স পুণর্বিবেচনার জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির রিপোর্ট জমা পড়লে এ বিষয়ে উপযুক্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।