ফের একদিনে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজারের গণ্ডি ছাড়িয়ে গেল। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৬,৩৮৭ জন। ফলে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ লক্ষ ৫১ হাজার ৭৬৭। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে ভারতে মৃত্যু হয়েছে ১৭০ জনের। ফলে দেশে কোভিড ১৯ রোগে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪,৩৩৭।

 

 

এদিকে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী মারণ ভাইরাসকে জয় করে এখনও পর্যন্ত দেশে সুস্থ হয়েছেন ৬৪,৪২৫ জন। ফলে বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ৮৩,০০৪। এরমধ্যেই আশার খবর শুনিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। দেশে সুস্থতার হার বেড়ে হয়েছে ৪২.৪৫ শতাংশ।

করোনা সংক্রমণে এখনও পর্যন্ত দেশের ২৩টি রাজ্য থেকে মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। যদিও গোটা বিশ্বের তুলনায় ভারতের মৃত্যুহার সবচেয়ে কম ২.৮৭ শতাংশ বলে দাবি করেছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। এপ্রিলের ১৫ তারিখ দেশে যেখানে মৃত্যু হার ছিল ৩.৩ শতাংশ তা এক মাসের মধ্যে  কমে হয়েছে ২.৮৭ শতাংশ। 

এদিকে করোনা সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যায় এখনও পর্যন্ত দেশের মধ্যে এক নম্বরে রয়েছে মহারাষ্ট্র। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যটিতে সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ২০৯১ জন, মৃত্যু হয়েছে ৯৭ জনের। ফলে মহারাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৪ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। করোনা মহারাষ্ট্রে এখনও পর্যন্ত প্রাণ কেড়েছে ১,৭৯২ জনের।

মহারাষ্ট্রে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা রাজধানী মুম্বইয়ের। দেশের বাণিজ্য রাজধানীতে গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের শিকার হন হাজারের বেশি মানু। মৃত্যু হয়েছে ৩৯ জনের। ফলে মুম্বইতে আক্রান্তের সংখ্যা ৩২ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। মৃতের সংখ্যা ১,০৬৫।

করোনা সংক্রমণে ভারতের রাজ্যগুলির মধ্যে এখনও দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে তামিলনাড়ু। রাজ্যটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে, মৃতের সংখ্যা ১২৭। অন্যদিকে তৃতীয় স্থানে রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর রাজ্য গুজরাত। রাজ্যটিতে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার ছুঁতে চলল। কোভিড ১৯ প্রাণ কেড়েছে ৯১৫ জনের। 

সংক্রমণ বাড়ছে রাজধানী দিল্লিতেও। গত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪১২ জন। ফলে দেশের রাজধানীতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। দিল্লিতে করোনা প্রাণ কেড়েছে ২৭৬ জনের।