এখনও কাটেনি লাদাখের জট। সমাঝান সূত্রের সন্ধানে ব্যর্থ হয়েছে সামরিক বৈঠক। একই অবস্থায় কূটনৈতিক বৈঠকে। এই অবস্থায় দুই দেশই পূর্ব লাদাখের বিস্তীর্ণ সীমান্ত বরাবর ক্রমশই শক্তি বাড়িয়ে চলেছে। কিন্তু এরই মধ্যে রীতিমত অবাক করার মত খবর পাওয়া গেছে। দুই দেশের  সীমান্ত উত্তেজনার মধ্যেই রাশিয়ায় সৈনা বাহিনীর মহড়ায় অংশ নেবে ভারত ও চিন। আর এই মহড়ায় অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে পাকিস্তান সেনা বাহিনীরও। 

আগামী ১৫-২৭ সেপ্টেম্বর দক্ষিণ রাশিয়ার কাভকাজে অনুষ্ঠিত হবে সেনা মহড়া। ওই মহড়ায় ভারতের সঙ্গে একই সঙ্গে দেখা যেতে পারে তার দুই যুযুধান প্রতিবেশী চিন আর পাকিস্তানের সেনা বাহিনীকে। সেনা সূত্রে খবর রাশিয়ান মহড়ায় ভারত তিনটি বাহিনীরও জওয়ানদের পাঠান হবে। 

ভারতীয় সেনা বাহিনী সূত্রে খবর, ২০০ জন সেনা ও আধিকারিক অংশ নেবেন রাশিয়ান সেনামহড়ায়।  পদাতিক বাহিনী থেকে পাঠান হবে ১৬০ জনকে। বিমান বাহিনীর হয়ে প্রতিনিধিত্ব করবেন ৪০ জওয়ান। আর নৌবাহিনীর দুই আধিকারিক থাকবেন। একটি সূত্র জানাচ্ছে ভারতের সঙ্গে সেনা মহড়ায় অংশ নিয়ে কোনও আপত্তি জানায়নি চিন। উল্টে সেনা মহড়ায় অংশ নেওয়ার বিষয়ে সবুজ সংকেত দিয়েছে বেজিং। তবে পাকিস্তান এখনও পর্যন্ত কিছুই জানায়নি। সবমিলিয়ে ১৩০০০ সেনা বন্ধুত্বপূর্ণ সেনা মহড়ায় অংশ নেবে বলেই জানিয়েছে রাশিয়া। 

বিধবার মাথা মুড়িয়ে জুতোর মালা পরিয়ে ঘোরানো হল গ্রামে, কেন এই নির্মম আচরণ যোগীর রাজ্যে ...

নিট-জেইই পরীক্ষা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি ১৫০ শিক্ষাবিদের, ইতিমধ্যে ৬ লক্ষ অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড ...

একটি সূত্র বলছে রাশিয়ান মহড়ায় চিন বেশি পরিমাণে নৌবাহিনীর জওয়ানদের পাঠাবে। ২০১৮ সাল থেকেই রাশিয়া এইজাতীয় সেনা মহড়ার ব্যবস্থা করে আসছে। প্রতিবেশী ইউরোপিয়ান দেশগুলির সঙ্গেও রাশিয়ান সেনারা মহড়া দিয়েছে। প্রতিবেশী দেশগুলির সঙ্গে সম্পর্ক সুদৃঢ়় করতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলেও জানান হয়েছে রাশিয়ার পক্ষ থেকে। তবে এবারের মহড়ার মূল উদ্দেশ্যই হল উত্তর ও ককেশাস অঞ্চলে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় হাতেকলমে প্রশিক্ষণ দেওয়া। আর এই প্রচেষ্টা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাস দমন আর প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা উভয় অভিযানেই দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে বলেই দাবি করছে রাশিয়ান সেনা বাহিনী।
লাল ফৌজকে রুখতে রাশিয়ান ইগলা এয়ার মিসাইল , লাদাখে চিন সীমান্তে শক্তি বাড়াচ্ছে ভারত .