জম্মু ও কাশ্মীরের জেলা উন্নয়ন কাউন্সিলের নির্বাচনে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আব্দুল্লাহর নেতৃত্বাধীন গুফকার জোট এখনও পর্যন্ত ভালো অবস্থায় রয়েছে। কিছুটা হলেও পিছিয়ে পড়েছে বিজেপি। আর ভূস্বর্গেও রীতিমত ধাক্কা খেয়েছে কংগ্রেস। দুপুর দুটো পর্যন্ত পাওয়া খবরে মেহবুবা মুফতি ও ফারুক আব্দুল্লাহর গুফকার অ্যালায়েন্স ৮১ টি আসনে এগিয়ে রয়েছে। বিজেপি এগিয়ে রয়েচে ৪৭টি আসনে।  এখনও পর্যন্ত কংগ্রেস এগিয়ে রয়েছে ২১টি আসনে। স্থানীয় প্রশাসনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী শুধুমাত্র জম্মু থেকেই  ৪৪টি আসনে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। জম্মুতে পিছিয়ে রয়েছে গুফকার অ্যলায়েন্স। জোট এগিয়ে রয়েছে মাত্র ২০টি সিটে। কাশ্মীর এলাকায় জোটে ৬১টি আসনে এগিয়ে রয়েছে। 

মতাদর্শগত পার্থক্য পিছিয়ে দেবে দেশকে, আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষের অনুষ্ঠানে বার্তা প্রধান...

নতুন বছরে কি আরও বিপদ বাড়িয়ে দেবে করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেন, কী বলছে WHO ...

জম্মু ও কাশ্মীর কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলের ২০টি জেলার ১৪৮টি আসনে ভোট গ্রহণ হয়েছে। এখানে ইলেকট্রনিক্স ভোটিং মেশিনের পরিবর্তে ব্যালটের পেপারে ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। তাই নির্বাচনে সম্পূর্ণ ফলাফল প্রকাশে দেরি হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দিয়েই ২৫ দিন ধরে আটটি দফায় ভোট গ্রহণ করা হয়েছিল। কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল ঘোষণা করার পর এই প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হল জম্মু ও কাশ্মীরে। 

তবে এবারই প্রথম শ্রীনগরে খাতা খুলতে পেরেছে বিজেপি। শ্রীনগরে ১৪ জন প্রার্থী লড়াই করছেন। তাদের মধ্যে সাতজন নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোট যুদ্ধে সামিল হয়েছিলেন। তিনটি আসনে এগিয়ে রয়েছে আপনি পার্টির সদস্যরা। বিজেপি, পিডিপি, জাতীয় কংগ্রেস ও পিপিলস মুভমেন্ট একটি করে আসনে এগিয়ে রয়েছে। বিজেপি নেতা অনুরাগ ঠাকুর এদিন জানিয়েছেন ভারতীয় জনতা পার্টির ভালো ফল করবে বলেও আশাবাদী তিনি। নতুন নেতৃত্বকেই দেখবে জম্মু ও কাশ্মীরের বাসিন্দারা। তিনি আরও বলেন স্থানীয় বাসিন্দারা অনেক বাধা উপক্ষো করেই ভোট দিতে বাড়ির বাইরে বার হয়েছিলেন। তাঁদের চেষ্টা বিফলে যাবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।