১০০ বছর ধরে আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলির সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করতে বিশেষ অবদান রেখেছে। ইসলামি সাহিত্য ও বিভিন্ন ভাষা নিয়ে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা ইসলামি বিশ্বের সঙ্গে ভারতের সংস্কৃতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে নতুন শক্তি জাগিয়ে তুলেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শর্তবর্ষ উদযান অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এমনই বার্তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 


প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয় উর্দু, আরবি ও ফারসি ভাষায় যে গবেষণা হয়েছে তা ইসলামি সাহিত্যকে আরও সমৃদ্ধ করেছে। পাশাপাশি তিনি বলেন সকল ধর্ম সমন্বয় কাজ করে চলেছে তাঁর সরকার। তিনি বলেন, দেশ এমন একটা জায়গায় রয়েছে সেখানে সকল ধর্মের মানুষের জন্যই সুনিশ্চিত রয়েছে সাংবিধানিক অধিকার। এখানে কোনও সম্প্রদায়ের মানুষই পিছিয়ে নেই।  মতাদর্শগত পার্থক্য দেশকে পিছিয়ে দিতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন। তিনি আরও বলেন আগামী দিনেও প্রত্যেক ধর্মের মানুষের যাতে সাংবিধানিক অধিকার স্বীকৃতি থাকে সেদিকেও নজর রাখা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, তাঁর সরকার যে প্রকল্পগুলি গ্রহণ করছে সেগুলি থেকে দেশের সকল মানুষই লাভবান হবেন। ধর্মী পক্ষপাতিত্ব ছাড়াই সকল প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ধর্মীয় পক্ষপাতিত্ব ছাড়াই দেশ এগিয়ে যাবে বলেও দাবি করেন তিনি। তিনি আরও বলেন, দেশের সকল মানুষই দেশের উন্নতির জন্য চেষ্টা করছেন। গত শতাব্দিগুলিতে ধর্মী  ভেদাভেদ আর শ্রেণি বৈষম্যের জন্য অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছে দেশ। তাই এখন আর নষ্ট করার মত সময় আমাদের হাতে নেই। উন্নয়ন যজ্ঞে সকলকে সামিল হতে হবে বলেও বার্তা দিয়েছেন তিনি। স্বাধীনতার পূর্ব অ্যাংলো ওরিয়েন্টাল কলেজ পয়লা ডেসেম্বর ১৯২০ সালে আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ে হয়ে যায় ।