গত অগস্ট  মাসে জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে নেয় কেন্দ্রীয় সরকার। রাজ্যের মর্যাদা হারায় জম্মু ও কাশ্মীর। তারপর থেকেই  বন্ধ ছিল ইন্টারনেট পরিষেবা। দীর্ঘ ছয় মাস বন্ধ থাকার পর কাশ্মীরের কয়েকটি স্থানে শনিবার থেকে চালু হল ইন্টারনেট পরিষেবা।

কেন্দ্র শাসিত জম্মু-কাশ্মীরের ২০টি জেলায় ইন্টারনেটে চালু হলেও কিছু নিষেধাজ্ঞা থাকবে। ইন্টারনেট পরিষেবা লাগু করা হয়েছে তালিকাভুক্ত ওয়েবসাইটগুলিতেই। যদিও সোশ্যাল মিডিয়াকে এর আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। কোনও গুজব বা উস্কানিমূলক বার্তা যাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় মাধ্যমে উপত্যকায় না ছড়িয়ে পড়ে সেই জন্যই এই সতর্কতা মূলক ব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন।

আরও পড়ুন: নিরাপত্তার জালে রাজধানী দিল্লি, লালকেল্লা থেকে চাঁদনি চক পর্যন্ত বসল ১৫০টি সিসিটিভি

কাশ্মীরের বিভিন্ন অঞ্চলে ইন্টারনেট সংযোগ চালু হলেও আপাতত  টুজি পরিষেবাই মিলবে। পোস্টপেড মোবাইলের পাশাপাশি প্রিপেড সিম কার্ডেও ডেটা পরিষেবা পাওয়া যাবে। জম্মু ও কাশ্মীরের স্বরাষ্ট্র দফতরের নির্দেশিকায় জানান হয়েছে, প্রশাসনের তালিকাভুক্ত ৩০১টি ওয়েবসাইট দেখতে পাবেন গ্রাহকরা। যার মধ্যে রয়েছে ব্যাঙ্কিং, শিক্ষা, খবর, পর্যটন ও কর্মসংস্থানের ওয়েবসাইট। এর মধ্যে সরকারি ওয়েবসাইটের সংখ্যা ১৫৩।

আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রী হিসাবে এখনও মোদীই প্রথম পছন্দ দেশবাসীর, অনেক পিছিয়ে রাহুল

গত ১০ জানুয়ারি সুপ্রিম কোর্ট জম্মু-কাশ্মীরের যোগাযোগ ক্ষেত্রে  অচলাবস্থা প্রসঙ্গে উদ্বেগ প্রকাশ করে। তার পরেই  গত সপ্তাহেই কুপওয়ারা ও বারামুলায় মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা চালু করা হয়েছে। ২৫ জানুয়ারি থেকে আপাতত ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত এই পরিষেবা মিলবে। ৩১ জানুয়ারি আবার বিষয়টি পর্যালোচনা করবে প্রশাসন।