কমল নাথ ইস্যুতে এবার মুখ মুখললেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী।  মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন কমল নাথ তাঁর দলের সদস্য হলেও তাঁর মন্তব্য মটেও ঠিক ছিল না। আর এজাতীয় মন্তব্য কখনই মেনে নেওয়া যায় না বলেও স্পষ্ট করে জানিয়েছে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। তিনি আরও বলেন, কমল নাথের মত বর্ষিয়ান নেতার কাছ থেকে এজাতীয় মন্তব্য খুবই অনভিপ্রেত। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন ব্যক্তিগত ভাবে এজাতীয় মন্তব্য তিনি কখনই সমর্থন করেন না। তবে কমল নাথের বিরুদ্ধ দল কোনও ব্যবস্থা নেবে কিনা তা নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি সনিয়া তনয়। 


উপনির্বাচনের প্রচারে গিয়ে প্রকাশ্যেই কমল নাথ ইমারতী দেবী সম্পর্কে অশালীন মন্তব্য করেন।  বিজেপি নেত্রী ইমারতী দেবীকে প্রকাশ্যেই আইটেম বলে সম্বোধন করেন কংগ্রেস নেতা। আর নিয়ে রীতিমত জল ঘোলা হতে শুরু করেছে রাজ্য রাজনীতিতে । ইমারতী দেবী আগে কংগ্রেসের সঙ্গেই ছিলেন। কিন্তু দল বদল করে তিনি এখন বিজেপি শিবিরে। আর দলের মহিলা নেত্রীর প্রতি অশালীন মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান। যা নিয়ে কিছুটা হলেও বিপাকে পড়তে হয়েছে কংগ্রেসকে। 

সামনেই মধ্য প্রদেশের উপনির্বাচন। আর আগে রাহুল গান্ধীর এই মন্তব্য কংগ্রেস কিছুটা হলে অক্সিজেন পাবে। কিন্তু বিপাকে পড়তে হবে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথকে। মধ্য প্রদেশের মসনদ হাতছাড়া হওয়ার পর এমনিতেই কমল নাথের সময় খারাপ যাচ্ছে। পাশাপাশি ইমারতী দেবীর একটি মন্তব্য কিছুটা হলেও উদ্বেগ বাড়িয়েছে। কারণ ইমারতী দেবী বলেছিলেন কমল নাথের মন্ত্রিসভায় তিনি ছিলেন। কিন্তু তাদের কোনও পদ দিতে পারেননি কমল নাথ। তাঁরা যাতে দল বদল না করেন তার জন্য মাসে পাঁচ লক্ষ করে টাকাও দেওয়া হত। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। তবুও প্রশ্নটা উঠেই যাচ্ছে মধ্য় প্রদেশের মসনদ ধরে রাখতে মরিয়া কমল নাথ অনৈতিক পথ অবলম্বন করেছিলেন কিনা।