দু দিনের পাহাড় সফর সেরে এদিনই দিল্লি ফেরছেন ভারতীয় সেনা প্রধান এমএম নারাভানে। এই দুদিনের সফরে সেনা প্রধান ঘুরে দেখেছেন পূর্ব লাদাখের সীমান্তবর্তী এলাকা। কথা বলছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত জওয়ানদের সঙ্গেও। হাসপাতালে গিয়ে দেখা করেছেন চিনা সেনাদের নির্মম অত্যাচারে জখম ভারতীয় জওয়ানদের সঙ্গে। সেনা প্রধান সরেজমিনে পর্যবেক্ষণ করেছেন গালওয়ান সংলগ্ন ১৪ নম্বর পেট্রোল পোস্ট নিয়েও। যে পোস্টটিকে কেন্দ্র গত গত ১৬ জুন রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে ছিল ভারত ও চিনা সেনা জওয়ানরা। 

সূত্রের খবর এদিন দিল্লিতে ফিরে দেশের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক করতে পারেন সেনা প্রধান। পূর্ব লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা সংলগ্ন এলাকার পরিস্থিতি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে বিষদ বিবরণ দিতে পারেন তিনি। কারণ লাধাখ ছাড়়ার আগে সেনা প্রধান প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর ৬৫টি পোস্টেই পেট্রোলিং জারি রাখার নির্দেশ দিয়ে এসেছেন ভারতীয় জওয়ানদের। এই পোস্টগুলির দায়িত্বে রয়েছে ইন্দো টিবেট বর্ডার সিকিউরিটি পুলিশ। 

সীমান্ত নিয়ে ভারত চিন কূটনৈতিক বৈঠক 'সদর্থক', সৈন্য সরাতে সহমত দুই দেশ ...

অমিত শাহর নিশানা আবারও গান্ধী পরিবার, এবার কংগ্রেসকে 'জরুরি অবস্থা' নিয়ে তোপ ...

সূত্রের খবর সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে সেনা প্রধান বৈঠক করবেন চিফ ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াতের সঙ্গে। আর সেই বৈঠকে উপস্থিত থাকার কথা নৌ ও বিমান বাহিনীর প্রধানদের। সূত্রের খবর প্রতিপক্ষ চিনের সঙ্গে  আলোচনা হলেও নিরাপত্তা ও সার্বভৌম্যত্ব নিয়ে কোনও গাফিলতি করতে নারজ কেন্দ্রীয় প্রশাসন। প্রতিবেশী কী কী ভাবে রণকৌশল সাজাচ্ছে তা নিয়েও আলোচনা করতে পারেন তিনি। ইতিমধ্যেই লাদাখ সংলগ্ন বিমান ঘাঁটিগুলিকে সক্রিয় করা হয়েছে। সতর্ক থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে নৌ বাহিনীকেও। দিন কয়েক আগেই লাদাখ সফরে গিয়ে সমস্ত পরিস্থিতি দেখে এসেছিলেন বিমান বাহিনীর প্রধান। 

গালওয়ানের ১৪ নম্বর পেট্রোল পোস্টে তৈরি হয়েছে বাঙ্কার, রীতিমত যুদ্ধের দামামা বাজাচ্ছে চিন ..

অন্যদিনে কূটনৈতিক ও সামরিক বৈঠকের পরেও সীমান্ত রীতিমত যুদ্ধের প্রস্তুতিত নিচ্ছে চিন। একাধিক জায়গায় কংক্রিটের বাঙ্কার তৈরি করেছে। সেনা টহল দিচ্ছে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর। এই পরিস্থিতি দাঁড়িয়ে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে রণকৌশল তৈরির জন্য একাধিক বৈঠক হবে বলেও সূত্রের খবর। কারণ নারাভানে ও বিমান বাহিনীর প্রধান বাদুরিয়া এলাকা পরিদর্শন করে যা যা দেখেছেন তাই নিয়েই আলোচনা হবে।