পূ্র্ব লাদাখ সীমান্ত সমস্যা মেটাতে একের পর এক বৈঠক করে চলেছে ভারত ও চিন। সামরিক বৈঠকের পর কূটনৈতিক বৈঠকও করেছে দুই দেশ। সূত্রের খবর বেশ কয়েকটি এলাকা ছাড়া অধিকাংশ জায়গা থেকেই নাকি সেনা সরাতে সহমত হয়েছে চিন। কিন্তু স্যাটেলাই ইমেজ থেকে পাওয়া ছবি বলছে অন্যকথা। পূর্ব লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার সংলগ্ন এলাকায় রীতিমত আশ্রয়কেন্দ্র বানিয়েছে। দাঁড়িয়ে রয়েছে চিনা সেনা। 


গালওয়ানের ১৪ নম্বর পেট্রোল পোস্ট সংলগ্ন এলাকার ছবি ধরা পড়েছে স্যাটেলাইটে। সেখানে দেখা যাচ্ছে গত ১৬ জুন পর্যন্ত এই এলাকায় কোনও কিছুই ছিল না। পাহাড় ঘেরা নদী অববাহিকা ছিল পুরোপুরি শুনশান। আর ২২ জুনের স্যাটেলাইট ইমেজে দেখা যাচ্ছে ১৪ নম্বর পেট্রোল পয়েন্ট বরাবর রীতিমত সক্রিয় চিনা সেনা। 

গালওয়ান সংলগ্ন ১৪ নম্বর পেট্রোলিং পয়েন্ট এলাকাতেই গত ১৫ জুন রাতে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েছিল দুই দেশের সৈনাবাহিনী। এই এলাকায় সংঘর্ষে ভারতের ২০ সৈনা জওয়ান নিহত হয়। আর সূত্রের খবর চিনের প্রায় ৪৩ জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে।


 
এক সমর বিশেষজ্ঞের কথায় ১৫ নম্বর পয়েন্টের আশেপাশে কোনও এলাকায় হামলার ছক রয়েছে চিনের পিপিলস লিবারেশন আর্মির। তিনি স্যাটেলাইট ইমেজ বিশ্লেষণ করে তিনি জানিয়েছেন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর ভারী যানবাহন চলাচলের ছাপও স্পষ্ট। যা সীমান্তের উত্তাপ বাড়াতে যথেষ্ট বলেই দাবি করেছেন তিনি। ভারতী সেনা বাহিনী ও বিদেশ মন্ত্রক সূত্রের খবর বিষয়টি নিয়ে খতিয়ে দেখছে কেন্দ্রীয় সরকার। 

সাইবার যুদ্ধে 'বিশ্বগুরু'র ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে চায় চিন, চিনের প্রথম লক্ষ্য কী ভারত ...

মাঝ অগাস্টেও স্বাভাবিক হবে না রেল পরিষেবা, টিকিটের টাকা কি ফেরত পাবেন যাত্রীরা ...
অন্যদিকে দৌলতবেগ ওল্ডি সংলগ্ন এলাকায় পিপিলস লিবারেশন আর্মি আরও একটি ফন্ট খূলতে পারে বলে সূত্রের খবর। কারণ দৌলতবেগ ওল্ডি সংলগ্ন এলাকায় ২০১৬ সালে একটি সেনা ক্যাম্প তৈরি করেছিল চিন। কিন্তু দীর্ঘদিন এই এলাকায় চিনা সেনা তৎপর ছিল না। দৌলত বেগ ওল্ডি থেকে মাত্র ২৩ কিলোমিটার দূরে সেই ক্যাম্প।

সীমান্ত সমস্যা মেটাতে ভারত ও চিন কূটনৈতিক বৈঠক, সীমান্ত পরিদর্শন সেনা প্রধানের ..