অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা শুরু হয়েগেছে। কিন্তু এখন নিয়মিত ট্রেন চলাচলের সিদ্ধান্ত নিতে দ্বিধাগ্রস্ত ভারতীয় রেল। অগাস্ট মাসের মাঝামাঝি সময়  পর্যন্ত মেল ট্রেন না চালানোরই সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল মন্ত্রক। সোমবার ভারতীয় রেলওয়ে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে প্রতিটি জোনকেই জানিয়েছে, ১৪ই এপ্রিলের বা তার আগের সমস্ত বুকিং বাতিল করা হয়েছে। আর টিকিটের অর্থ ফেরত দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ভারতীয় রেলের নিয়ম অনুযায়ী ১২০ দিন আগে টিকিট বুকিং করা যায়। সেইমত যেসব যাত্রীরা টিকিট বুকিং করেছিলেন তাঁদের টিকিটের পুরো দাম ফের দেওয়া হবে। আগেই ৩০ জুন পর্যন্ত নিয়মতি ট্রেন পরিষেবা বাতিলের কথা ঘোষণা করা হয়েছিল। 

করোনা মোকাবিলায় তামিলনাড়ুর অস্ত্র 'প্রাচীন সিদ্ধা', কতটা উপকারী এই পদ্ধতি ...

সীমান্ত সমস্যা মেটাতে ভারত ও চিন কূটনৈতিক বৈঠক, সীমান্ত পরিদর্শন সেনা প্রধানের ...
বর্তমানে চাহিদা মেটাতে ২৩০টি এসি ট্রেন চালাচ্ছে ভারতীয় রেল। গত ১২ মে থেকে বিশেষ মেল ও এক্সপ্রেস  ট্রেন চালান হচ্ছে। রেল মন্ত্রক সূত্রের খবর প্রয়োজনে বাড়ান হতে পারে স্পেশাল ট্রেনের সংখ্যা। কিন্তু এখনও স্বাভাবিক করা হবে না রেল পরিষেবা। এক নাগরিকের  কথায় অগাস্ট মাসের মাঝামাঝি তিনি টিকিট বুকিং করেছিলেন। কিন্তু  রেল মন্ত্রকের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী তাঁর টিকিট আপনা থেকেই বাতিল হয়ে যায়। আর তিনি বরাদ্দ  আর্থও ফেরত পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন। তবে আগে বাতিল হওয়ার অনেক ট্রেনের যাত্রী টিকিটের টাকা  ফেরত পাননি বলেই অভিযোগ। 

চিনকে কোনঠাসা করতে ৩টি বিষয়ে জোর, যা সুবিধে করবে ভারতীয় সেনাদের ...

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে গত ২৫ মার্চ থেকেই বন্ধ রয়েছে রেল পরিষেবা। বাতিল করা হয়েছে মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রা। কিন্তু পয়লা মে-র পর প্রবাসী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরাতে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন চালান শুরু করেছিল রেল মন্ত্রক।তারপর চাহিদা মেটাতে বিশেষ এসি ট্রেন চালানর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারজন্য রীতিমত জোর দেওয়া হচ্ছে করোনা স্বাস্থ্য বিধির ওপর। সফরের আগে সংশ্লিষ্ট যাত্রীর নমুনা পরীক্ষা জরুরি। আর সফরকালীন সময় যাত্রীদের মাস্ক আর গ্লাভসের ব্যবহারও সুনিশ্চিত করতে হবে বলেও জানিয়েছিল রেল মন্ত্রক।