পূর্ব লাদাখ সীমান্ত থেকে চিনের সেনা সরিয়ে নেওয়ার দবি অস্বীকার করেছে ভারত। ভারতের পক্ষ থেকে বলা হয়ছে সর্বশেষ আলোচনা মত কাজ করছে না চিন। এখনও প্যাংগং, গোগরা এলাকায় চিনা সেনা মোতায়েন রয়েছে।  প্যাংগং লেকের সেনা সমাবেশ নিয়ে প্রথম থেকে নীরব ছিল চিন। তবে বেজিং জানিয়েছিল গ্যালওয়ান, হটস্প্রিং আর গোগরা থেকে সেনা সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র ওয়াং অয়েনবিং মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছিলেন চিন বিতর্কিত এলাকা থেকে সেনা সরিয়ে নিয়েছে চিন। 

ভারতীয় সেনা বাহিনীর এক কর্তা জানিয়েছেন এখনও পর্যন্ত গোগরা আর প্যাংগং লেকে উভয়পক্ষের সেনা মোতায়েন রয়েছে। রীতমত উত্তেজনা রয়েছে হটস্প্রিং-গোগরা ১৭ নম্বর পেট্রোলিং পয়েন্ট পর্যন্ত এলাকায়। 

ড্রাগনের নজর এবার হিমাচল প্রদেশের দিকে, তিব্বত সীমান্তের শেষ গ্রামের কাছে কী করছে লাল ফৌজ ...

প্যাংগন হ্রদ এই মুহূর্তে ভারত ও চিনের মধ্যে সবথেকে বিতর্কিত এলাকা। সেনা সূচত্রে জানাগেছে চিনারা ফিঙ্গার ফোর থেকে ফিঙ্গার ফাইভে ফিরে এসেছে। তবে তারা রেজলাইনের মধ্যেই অবস্থান করছে। আর ভারতীয় সেনারা  প্যাংগং-এর ৩ ও ২ নম্বর ফিঙ্গার পয়েন্টে অবস্থান করছে। সূত্রটি জানাচ্ছে প্যাংগং সংলগ্ন এলাকায় চিনা সেনার যে কাঠামোগুলি তৈরি করেছিল সেগুলি ভেঙে ফেলেনি। হ্রদ সংলগ্ন এলাকায় উভয় পক্ষের সেনাদের মধ্যে মাত্র ৪-৫ কিলোমিটার দূরত্ব রয়েছে। 

আন্তর্জাতিক বাঘ দিবসে নেটিজেনদের মন কাড়ল 'দক্ষিণরায়' ও হাঁস, দেখেনিন কী রয়েছে সেই ভিডিতে ...

১৪ জুলাই কমান্ডার পর্যায়ে আলোচনায় বসেছিল ভারত ও চিন। কিন্তু তারপরেও চিনা সেনাদের অবস্থানের কোনও পরিবর্তন হয়নি বলেও দাবি করা হয়েছে। উল্টোদিনে চিনারা তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকা ৫ ও ৮ নম্বর ফিঙ্গারের মধ্যে সেনা বাহিনী বেশি পরিমাণে মজুত করেছে। পাল্টা হিসেবে ভারতও এই এলাকায় শীতকালে সেনা মোতায়েন বাড়ানোর প্রস্তুতি নিয়েছে। একটি সূত্র জানাচ্ছে চিনা সেনারা আগে ভারতীয় নিয়ন্ত্রণে থাকা চার নম্বর ফিঙ্গার এলাকায় সেনা শিবির স্থাপন করেছিল। বর্তমান অবস্থান অনুযায়ী তারা কিছুটা হলেও পিছিয়ে গেছে। 

পাইলট জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালেন স্পিকারকে, রাজ্যপাল আবারও হতাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রীকে ..