এদিন টুইটারের নিরাপত্তা বেড়ার গুরুতর লঙ্ঘনের খবর ছড়িয়ে পড়তেই শিল্পপতি তথা সাংসদ রাজীব চন্দ্রশেখর টুইট করে বলেন, টুইটারের উপর এই বড় মাপের সাইবার হামলা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। কারণ এতে কেউকেটাদের নাম জড়িত থাকলেও, এই ঘটনায় বোঝা যাচ্ছে ভারতে বা বিদেশে কোনও ব্যবহারকারীর গোপনীয়তাই আর সুরক্ষিত নয়। যে কারোরই তথ্য চুরি হতে পারে। তিনি দাবি করেছেন, টুইটারকে অবশ্যই এই গোপনীয়তা লঙ্ঘনের বিষয়ে বিশদ বিবরণ প্রকাশ করতে হবে। সেই সঙ্গে ভারতীয়দের টুইটার অ্যাকাউন্টগুলি সুরক্ষিত করতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব, এই বিষয়ে পদক্ষেপের জন্য তিনি কেন্দ্রীয় ইলেক্ট্রনিক্স এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রককে অনুরোধ করেছেন।

এর আগেও টুইটার, ফেসবুক এবং অন্যান্য সোশ্য়াল মিডিয়ার ফিল্টার পদ্ধতির নীতি ও নিয়মগুলি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন রাজীব চন্দ্রশেখর। বলেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি অ্যালগোরিদম ব্যবহারের নামে বিষয়বস্তুর যে ঝাড়াই বাছাই করে, তাই নিয়ে তদন্ত হওয়া দরকার। সোশ্যাল মিডিয়াগুলির অ্যালগোরিদম, কোনও বার্তা বা কথোপকথনকে আরও বেশি করে ছড়িয়ে দিতে পারে কিংবা তা চেপে দিতে পারে। সমস্যা হল তাতে ভারতের সংবিধানের দেওয়া মত প্রকাশের স্বাধীনতার অধিকারকে খর্ব হচ্ছে। সেইসঙ্গে এই অ্যালগোরিদমের নকশা যিনি করেছেন তার কোনও জবাবদিহিতারও দায় নেই।

দীর্ঘদিন ধরেই রাজীব চন্দ্রশেখর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলির বিষয়বস্তু কাটছাঁটের নীতি, ব্যবহারীদের গোপনীয়তার নীতি, তথ্য সুরক্ষার ব্যবস্থার মতো বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্বচ্ছতার অভাবের অভিযোগ করে আসছেন। এদিনের ঘটনা তাঁর উদ্বেগকেই মান্যতা দিল, বলা যেতে পারে।