দেশের পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন শহরের তালিকা প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী বৃহস্পতিবার 'স্বচ্ছ সর্বেক্ষণ ২০২০' পুরো তালিকা প্রকাশ করে মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরের বাসিন্দাদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। কারণ এই তিন চতুর্থবার পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন সেরা শহরের খেতাব অর্জন করল ইন্দোর। 

কেন্দ্রের তরফে জানান হয়েছে দেশের সবথেকে পরিচ্ছন্ন শহর হল ইন্দোর। পাশাপাশি স্বচ্ছতা নিয়ে যে রাজ্যগুলি ভালো ফল করেছে তাদের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে ছত্তিশগড়। এই নিয়ে দ্বিতীয়বার শীর্ষ স্থান দখল কর এই রাজ্যটি। গঙ্গা উপকূলবর্তী পরিচ্ছন্ন শহরের তকমা জিতেছে বারানসী। সেরা স্বনির্ভর পরিচ্ছন্ন শহরের তকমা জিতেছে তিরুপতি। দ্রুত বড় শহরের দিকে এদিয়ে যাওয়া পরিচ্ছন্ন শহরগুলির মধ্যে সেরা রাজস্থানের যোধপুর। ভারতের সেরা স্বচ্ছ ক্যান্টমেন্ট বোর্ডের পুরষ্কার জিতেছে পঞ্জাবের জলন্ধর। স্বচ্ছতায় নাগরিকদের অংশ্রহণে প্রথম স্থানে রয়েছে উত্তর প্রদেশের শাহজাহানপুর। 

পরিচ্ছন্ন প্রথম দশ 
      রাজ্য                              শহর 

১, মধ্যপ্রদেশ                       ইন্দোর

২. গুজরাত                           সুরাত

৩. মহারাষ্ট্র                            নভিমুম্বই

৪. ছত্তিশগড়                        অম্বিকাপুর

৫. কর্ণাটক                               মহীশূর 

৬. অন্ধ্রপ্রদেশ                       বিজওয়াড়া

৭. গুজরাত                            আমেদেবাদ

৮. দিল্লি                                   নতুন দিল্লি

৯. মহারাষ্ট্র                             চন্দ্রপুর এম

১০. মধ্যপ্রদেশ                          কারগোন


পরিচ্ছন্নতা, স্যানিটাইজেশন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও সামগ্রিক পরিচ্ছন্নতার ওপর ভিত্তি করে কেন্দ্রীয় সরকার স্বচ্ছ সর্বেক্ষণ বাৎসারিক তালিকা প্রকাশ করা হয়। এই সমীক্ষায় মোট ৪২৪২টি শহর, ৬২টি ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড ও ৯২টি গাঙ্গেয় উপকূলবর্তী শহর অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। ১.৮৭ কোটি মানুষ স্বর্তস্ফূর্তভাবে এই সমীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন। নতুন নিয়ম অনুযায়ী বছরে শহরগুলিকে বছর একবার মাত্র পর্যবেক্ষণ না করে গোটা বছর জুড়েই পর্যবেক্ষণ করে তবেই ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এদিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই তালিকা প্রকাশ করেন। কেন্দ্রীয় আবাসন ও নররোন্নয়ন মন্ত্রকের তরফে এই অনুষ্ঠানের  আয়োজন করা হয়। পুরষ্কার প্রদান করে হরবিন্দর পুরী। অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ারা কথা ছিল প্রধমনমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর। কিন্তু ব্যক্তগত কারণে তিনি উপস্থিত হননি। 

মানালি থেকে লে পর্যন্ত নতুন রাস্তা তৈরি করছে ভারত ,লাল ফৌজদের তৎপরতার পাল্টা হুঁশিয়ারি ...

স্বামীহারা মা বিয়ে করছেন নিজের পুত্রকে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া এই খবর কি সত্যি ..