বাড়ছে লকডাউন। তৃতীয় দফায় এই লকডাউনকে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। এর ফলে ৪ মে থেকে ফের দুই সপ্তাহের জন্য লকডাউন শুরু হচ্ছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে একথা জানিয়ে দিয়েছে। তবে জোন অনুযায়ী এই লকডাউন প্রয়োগের মাত্রায় তারতম্য ঘটবে বলে এই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। 

ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট ২০০৫ অনুযায়ী কেন্দ্রীয় সরকার লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলেও জানানো হয়েছে। কারণ, কোভিডি ১৯-এর জেরে দেশজুড়ে যে পরিস্থিত তৈরি হয়েছে তা অনেকটা নিয়ন্ত্রণে থাকলেও এখনও সংক্রমণের সম্ভাবনা রয়েছে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে এই বিজ্ঞপ্তিতে। তাই লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ছাড়া কোনও রাস্তা সরকারের কাছে নেই বলেও এই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। 

আরও পড়ুন- রাজ্যের ১০ টি জেলা এখনও রয়েছে করোনার রেড জোনে, একনজরে চোখ বুলিয়ে নিন আপনি রয়েছেন কোথায়

এবার জোন অনুযায়ী কোথায় কেমনভাবে লকডাউন লাগু হবে তা নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক ৩০ এপ্রিল যে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে তা বজায় রাখা হয়েছে। রেড জোন-এ লকডাউন পুরোপুরি লাগু হচ্ছে। অরেজ্ঞ এবং গ্রিন জোনে কিছুটা ছাড় থাকবে। গ্রিন জোনে যেহেতু করোনা আক্রান্তের কেস নেই, সেই কারণে গ্রিন জোনে লকডাউনের বহু বিধিনিষেধ লাগু করা হবে না। এর ফলে গ্রিন জোনে থাকা মানুষজন অরেঞ্জ ও রেড জোনে বসবাসকারীদের থেকে বেশি সুবিধা ভোগ করবেন। 

আরও পড়ুন-আশা-আশঙ্কার দোলাচলে দেশ, ২ সপ্তাহে রেড জোন কমলেও বাড়েনি করোনামুক্ত গ্রিন জোনের সংখ্যা

 

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের জেরে দেশে এরমধ্যেই লকডাউন-এর দু'দফায় লাগু হয়েছে। এটা লকডাউনের তৃতীয় দফা। রাজ্যগুলিও কেন্দ্রীয় সরকারের জারি করা লকডাউন বিধি মেনে চলছে। যদিও, দ্বিতীয় দফার লকডাউন চলাকালীন-ই তেলেঙ্গানা সরকার নিয়ম-কানুন শিথিল করার কথা চিন্তা করছিল। ওড়িশা সরকার আবার লকডাউনের মেয়াদ ইতিমধ্যেই বৃদ্ধি করে দিয়েছে। এহেন অবস্থায় কেন্দ্রীয় সরকার তৃতীয় দফার লকডাউন লাগু করার কথা ঘোষণা করা হল। এদিনের এই ঘোষণায় একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো যে সকাল ছয়টা থেকে সন্ধে ছয়টা পর্যন্ত লকডাউনে সমস্ত জোনের সব মানুষকেই গৃহবন্দি থাকতে হবে। অতি জরুরি কাজে বাইরে বের হওয়া যাবে। তবে, এরজন্য উপযুক্ত প্রমাণ থাকতে হবে।