৩১ মে শেষ হবে লকডাউন ৪.০। সূত্রের খবর এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে লকডাউন আরও বাড়ান কথাই চিন্তাভাবনা করছে কেন্দ্রীয় সরকার। তবে অর্থনৈতিক কর্যকলাপে গতি আনতে আগামী লকডাউনে আরও ছাড় দেওয়া হতে পারে। সূত্রের খবর নতুন গাইডলাইন তৈরি করতে ব্যস্ত কেন্দ্রীয় সরকার। এদিনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন অমিত শাহ। সূত্রের খবর লকডাউন ৪.০ পরবর্তী পদক্ষেপের পাশাপাশি লকডাউনের মেয়াদ আরও বাড়ানো নিয়েই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর। সূত্র খবর লকডাউনের মেয়াদ বাড়ান হলেও অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ চালু করার ওপর জোর দিতে চাইছে কেন্দ্রীয় সরকার। সেই ক্ষেত্রে কী কী হতে পারে নতুন লকডাউনের নিয়ম তারই দিকে নজর দেওয়া জরুরী।

বিমান পরিষেবাঃ
প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে লকডাউনের পঞ্চম পর্বে এসে আরও বাড়ান হতে পারে উড়ান পথের সংখ্যা। পাশাপাশি বাড়ান হতে পারে উড়ানের সংখ্যাও।  দীর্ঘ দুমাস উড়ান পরিষেবা বন্ধ থাকার পর লকডাউনের চতুর্থ পর্ব থেকে তা চালু হয়েছিল।  আর সেই সময় থেকেই  দেশের মেট্রো সিটি গুলিকে সংযুক্ত করার পাশাপাশি অন্যান্য শহরের সঙ্গেও যোগাযোগ বাড়ান হয়েছে। প্রায় একশোটি রুটে বিমান চালান হয়েছে বলে অসমরিক বিমান মন্ত্রকের তরফে জানান হয়েছে। হরদীপ সিং পুরী জানিয়েছে অগাস্ট মাস থেকে চালু করা হতে পারে আন্তর্জাতিক উড়ান পরিষেবা। 

ট্রেন পরিষেবাঃ
ইতিমধ্যেই শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন চলতে শুরু করেছে। এখনও পর্যন্ত ৩,৭৩৬টি ট্রেনে করে প্রায় ৫০ লক্ষ শ্রমিককে পাঠান হয়েছে গন্তব্যে। গুজরাট, মহারাষ্ট্র উত্তর প্রদেশ আর বিহারের পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য প্রায় ৪০ শতাংশ ট্রেন চালান হয়েছে। 
সূত্রের খবর পয়লা জুন থেকে একশো জোড়া মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে রেল মন্ত্রকের। যার বুকিং ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে। আগামী দিনে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ট্রেন পরিষেবা চালু করার ক্ষেত্রে চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। 

অন্তর্দেশীয় বাস ও মেট্রো পরিষেবাঃ
অন্ধ্র প্রদেশ,কেরল, ওড়িশার মত কিছু রাজ্য ইতিমধ্য়েই অন্তর্দেশী বাস পরিষেবা শুরু করেছে। বাকি রাজ্যগুলিও পয়লা জুন থেকে বাস পরিষেবা শুরু করতে পারে তার দিকে জোর দেওয়া হতে পারে। অল্প সংখ্যক যাত্রী নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনগুলিতে থামবে মোট্রো। তেমনই পরিকল্পনা গ্রহণ করা হচ্ছে।  নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে মেট্রো পরিষেবা চালুর কথাও চিন্তাভাবনা করছে কেন্দ্রীয় সরকার। 

নিত্য় প্রয়োজনীয় পরিষেবাঃ
লকডাউনের চতুর্থ পর্ব থেকেই  দোকান-বাজার খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। এক্ষেত্রে আগামী দিনে সেই নিয়ম আরও শিথিল করা হতে পারে। দোকান বাজারের পাশাপাশি শপিং মলও খোলার অনুমতি দেওয়া হতে পারে বলেও মনে করা হচ্ছে। তবে জোড় বিড়োজ নীতেতেই দোকান খোলা হতে পারে বলেও সূত্রের খবর। 

জিম, সিনেমাহল আর ধর্মীয় স্থান  ও সেলুনঃ
জিম সিনেমা হল আর থিয়েটার বন্ধ করা হতে পারে আগামী দিনেও। তবে বেশ কয়েকটি রাজ্য ধর্মীয় স্থান খোলার অনুমতি দিলেও তা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার চিন্তাভাবনা করছে। অন্যদিকে ইতিমধ্যেই সেলুন, বিউটি পার্লার খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে সবকিছুতেই নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে কনটাইমেন্ট এলাকায় সবকিছু বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হতে পারে। 

স্কুলঃ
জুলাই মাসে সিবিএসসি পরীক্ষার অনুমতি দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। প্রথম দুসপ্তাহের মধ্যেই পরীক্ষা হবে বলেও জানান হয়েছে। তবে স্কুল খোলার বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। সূত্রের খবর স্কুল খুললেও প্রথমে নবম শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পড়ুয়াদেরও স্কুলে আসার অনুমতি দেওয়া হবে। বাকিদের জন্য বাড়ি থেকেই পঠন পাঠনের  নিয়ম প্রযোজ্য থাকবে।