প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের এসপিজি নিরাপত্তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হল। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক এবং ক্যাবিনেট সচিবালয়ের মধ্যে বৈঠকের পরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এবার থেকে শুধুমাত্র জেড প্লাস নিরাপত্তা পাবেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। 

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এখন থেকে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে সিআরপিএফ। সমস্ত এজেন্সির থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য়ের ভিত্তিতে নিরাপত্তা বিষয়ক রুটিন বৈঠকের পরেই এই সিদ্ধান্ত নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। 

এই সিদ্ধান্তের পরে এবার থেকে দেশের মাত্র চারজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এসপিজি নিরাপত্তা পাবেন। তাঁরা হলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধী, রাহুল গান্ধী এবং প্রিয়ঙ্কা গান্ধী। 

আরও পড়ুন- রাত কাটছে লক-আপে, সকালে কোর্টে! গ্রেফতারির পর কতটা 'খাতির' পেলেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী

আরও পড়ুন- নাম নিলেন না একবারও, রাজীব স্মরণেই মোদীকে গুপ্ত-আক্রমণ সনিয়ার

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, নির্দিষ্ট সময় অন্তর দেশের গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের নিরাপত্তা বাড়ানো বা কমানো নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠক হয়। কোন রাজনৈতিক নেতার জীবনের উপর কতটা ঝুঁকি রয়েছে, নিরাপত্তা এজেন্সিগুলির থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পেশাদারি কায়দায় তার পর্যালোচনা করা হয়। এবারেও সেই পদ্ধতি মেনেই মনমোহন সিংয়ের নিরাপত্তা কমানো হয়েছে। 

এসপিজি-তে প্রায় তিন হাজার নিরাপত্তা কর্মী কর্মরত রয়েছেন। বর্তমান এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও তাঁদের পরিবারকেও নিরাপত্তা দেয় এসপিজি। নিজের নিরাপত্তারক্ষীদের হাতে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর হত্য়ার পরে মূলত প্রধানমন্ত্রীদের নিরাপত্তা দিতেই ১৯৮৫ সালে এসপিজি তৈরি করা হয়েছিল। 

১৯৯১ সালে রাজীব গান্ধীর হত্যার পরে এসপিজি আইন সংশোধন করে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীদের পরিবারকেও দশ বছর এসপিজি নিরাপত্তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বাজপেয়ী সরকারের আমলে অবশ্য ফের আইনে বদল করে দশ বছরের সময়সীমা কমিয়ে এক বছর করা হয়। সেই সংশোধনীতে বলা হয়, পরিস্থিতি অনুযায়ী প্রয়োজনে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁদের পরিবারকে এক বছরের পরেও নিরাপত্তা দেবে এসপিজি। 

মনমোহন সিংয়ের মতোই অতীতে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচডি দেবেগৌড়া এবং ভি পি সিংয়ের এসপিজি নিরাপত্তাও প্রত্যাহার করা হয়েছিল। আবার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী যতদিন বেঁচেছিলেন, এসপিজি নিরাপত্তা পেয়েছেন। মনমোহন সিং ঘনিষ্ঠদের অবশ্য দাবি, নিজের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন নন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। কেন্দ্রীয় সরকার এই বিষয়ে যে সিদ্ধান্ত নেবে, সেটাই মেনে নেবেন তিনি।