এ যেন ঠিক ছেঁড়া কাঁথায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন দেখার মত ঘটনা। কারণ মধ্যপ্রদেশের এক কৃষক তেমনই রাতারাতি জ্যাকপট হাতে পেলেন। কারণ  জমি চাষ করার সময় মাঠ থেকেই পেলেন একটি হীরে। যার বাজার মূল্য ৬০ লক্ষ টাকার বেশি। হিরেটি ১৪.৯৮ ক্যারেটের বলেও দাবি করেছেন স্থানীয় এক জুহুরী। প্রতি মাসে ২০০ টাকার বিনিময় জমটি চাষ করার জন্য চুক্তি নিয়েছিল।   

একটি হিরে তাঁর আগামী দিনগুলি বদলে দেবে বলেই দাবি করেছেন ৪৫ বছরের ক্ষেতমজুর লখন যদাব। তিনি জানিয়েছন তিনি মাঠে চাষ করার সময়ই হিরে পেয়েছিলেন। তিনি বলেছেন মাঠের মধ্যে থেকে নুড়ি পাথর একধারে সরিয়ে রাখছিলেন। সেই সময় দেখতে পান একটি চকচকে পাথর খণ্ড। যা অন্য পাথরগুলির থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। তাই পাথরটি হাতে তুলে নিয়ে পরিষ্কার করে। তখনই দেখতে পার আর চমকের ছটা। প্রথমে তাঁর মনে হয়েছেল সেটি হিরে। তারপর সেটি নিয়ে যান জেলা অফিসারের কাছে। তিনি পরীক্ষা করে জানিয়েদেন লখন যাদব যে পাথরটি পেয়েছেন সেটি হিরের খণ্ড। 

করোনা মহামারি কি বদলে দিচ্ছে বিয়ের অনুষ্ঠানও, তারই ইঙ্গিত রয়েছে এই ভিডিওটি ..

করোনা মহামারির মধ্যেই অজানা রোগে কাঁপছে অন্ধ্র, এখনও পর্যন্ত আক্রান্ত ২৯০ ..

লখন যাদব জানিয়েছেন এই হিরে বিক্রির টাকায় তিনি তাঁর চার সন্তানকে পড়াশুনে শেখাবেন। নিয়ে পড়াশুনা করেতে পারেননি। সেই আক্ষেপ পুশিয়ে নেবেন ছেলেমেয়েদের মাধ্যমে। অন্যদিকে তিনি বলেন, হিরে বিক্রির টাকায় তিনি একটি মোটলসাইকেল কিনেছেন। জমিটি চাষের জন্য আরও একবার লিজ নেবেন বলেও জানিয়েছেন। তবে এটাই প্রথম নয় কৃষকরা চাষের সময় জমি থেকে হিরে পেয়েছে। এর আগে নভেম্বরের শুরুতেই মধ্যপ্রদেশের একটি খনি থেকে ৬.৯৪ ক্যারটেরও বেশি হিরে পয়েরাতারাতি কোটিপতি হয়েগিয়েছিলেন এক ২৪ বছরের এক খনি মজুর। মধ্য প্রদেশের পান্না হিরে খনির জন্য বিখ্যাত। সেখান থেকে কী কোনও ভাবে এই হিরে এসেছে? তা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।