এশিয়ার সবচেয়ে ধনীতম ব্যক্তির শিরোপা খোয়াতে হল রিলায়্যান্স ইন্ডাস্ট্রিজের কর্ণধার মুকেশ অম্বানিক। সৌজন্যে গত তিন দশকে অপরিশোধিত চেলের দামের সর্বাধিত পতন ও বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। বিশ্ব বাজারে তেলের দাম পড়ে যাওয়ায় মুকেশ অম্বানির ৫.৮ বিলিয়ন ডলার সম্পত্তির লোকসান হয়েছে। এরফলে এশিয়ার দ্বিতীয় ধনী ব্যক্তি হতে হয়েছে তাঁকে। আর এক নম্বরে উঠে এসেছেন আলিবাবা গ্রুপের কর্ণধার জ্যাক মা।

আরও পড়ুন: সরকার পতনের চেনা ছক বিজেপির , কংগ্রেসের ভাঙনকে কাজে লাগিয়েই বাজিমাত মধ্যপ্রদেশে

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছ করোনাভাইরাস। যার জেরে পৃথিবীর সব প্রান্তে আর্থিক মন্দার প্রকোপ দেখা দিচ্ছে। যার ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন মুকেশ অম্বানিও। আর এর ফলেই এশিয়ার সেরা ধনীর শিরোপা খোয়াতে হল তাঁকে। অন্যদিকে ২০১৮ সালের মাঝামাঝি এক এশিয়ার সেরা ধনী হয়েছিলেন জ্যাক মা। তিনি আবার সেই হৃত সম্মান পুনরুদ্ধার করলেন। ব্লুমবার্গ বিলিয়োনেয়ার্স ইনডেক্স অনুযায়ী  বর্তমানে জ্যাকের মোট সম্পত্তির পিরমাণ ৪৪.৫ বিলিয়ন ডলার। যা মুকেশ অম্বানির সম্পদের থেকে ২.৬ বিলিয়ন ডলার বেশি।

 

 

গত সোমবার বিএসইতে রিলায়েন্স শেয়ারের দাম প্রায় ১৩.৬৫ শতাংশ কমেছে। গত ১০ বছরে একদিনে এটাই ছিল রিলায়েন্সের সর্বোচ্চ পতন। ফলে দাম গিয়ে দাঁড়ায় ১০.৯৬.৬৫ টাকা। ১৯৯১ সালের পর গত সোমবার অপরিশোধিত তেলের দামেও পতন দেখা দেয়। বিশ্বজুড়ে নোভেল করোনাভাইরাস যেভাবে ত্রাস ছড়িয়েছে তাকে আর্থিক মন্দার প্রকোপও শুরু হয়েছে। মুকেশ অম্বানির  রিলায়্যান্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড সেই ধাক্কা সামলায় কীভাবে সেটাই দেখার।

আরও পড়ুন: করোনার এপি সেন্টার উহান পরিদর্শনে জিনপিং, কোভিড-১৯-এর পরীক্ষা করাবেন না ট্রাম্প

এদিকে করোনা আতঙ্কের জেরে আলিবাবারও বেশ কয়েকটি ব্যবসায় মন্দা দেখা দিয়েছে। তবে ক্লাউড কম্পিউটিং পরিষেবা ও মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনগুলির চাহিদা বাড়ায় সেই ধসে কিছুটা রাশ টানা গেছে।