মুকেশ আম্বানির বাড়ির সামনে তাজা বোমা বোঝাই গাড়ি রাখার কাণ্ডে তদন্তে নামে  মুম্বই পুলিশের অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াড। এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকা মূল অভিযুক্ত মনসুখ হীরেনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয় কয়েকদিন আগেই। তবে সেই কাণ্ডের আগেই প্রকাশ্যে এসেছিল আরও এক নাম। তিনি হলেন মুম্বইয়ের উচ্চপদস্ত পুলিশ অফিসার সচিন ওয়াজকে। আগে থেকেই তাঁর ওপর ছিল কড়া নজর, ছিল সন্দেহ, যার আভাস পাওয়া মাত্রই  মুম্বই পুলিশের অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াড তার নামে এফআইআর দায়ের করেছিল। 

আরও পড়ুন- জঙ্গিদের হাতে পণবন্দি হতে চেয়েছিলেন 'লড়াকু' মমতা, অজানা কাহিনি জানালেন যশবন্ত

সচিনের নামে অভিযোগ দায়ের হওয়ার পরই সাতে সাসপেন্ড কের দেওয়া হয়। এরপর শনিবার রাত ১২ টা নাগাদ সচিনকে গ্রেফতার করে এনআইএ। যে গাড়িতে বোমা উদ্ধার হয়েছিল ২০২০ সাল থেকে সেই গাড়িটি ছিল সচিনের নামেই। টানা ১২ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ চলতে থাকে। এরপরই সঠিক উত্তর না মেলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়, বর্তমানে দফায় দফায় চলছে জেরার পর্ব। 

তবে এই পরিস্থিতি সচিনের জীবনে প্রথম নয়। তিনি নিজেই শনিবার একটি স্টেটাস-এ বিস্তারিত জানান, যে এর আগেও একই ভাবে তাকে ফাঁসানো হয়েছিল। কিন্তু তখন তার হাতে ১৭ বছর সময় ছিল, নিজেকে মূল স্রোতে ফেরানোর জন্য। আবারও তাকে একইভাবে ফাঁসানো হচ্ছে। তাই এবার সময় হয়েছে পৃথিবীকে বিদায় জানানোর। কারণ এখন আর হাতে সেই সময় নেই।