২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের সঙ্গেই বেশ কয়েকটি রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বাদ ছিল জম্মু-কাশ্মীর। তারপর গত রবিবার ৩৭০ ধারা বাতিল করার ফলে জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্য ভাগ হয়ে লাদাখ, জম্মু ও কাশ্মীর - তিনটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত হয়েছে। নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের অগণতান্ত্রিকভাবে অস্বীকার করছে মোদী সরকার, বলে বিরোধীরা সমালোচনা করেছিল। বৃহস্পতিবার কিন্তু নরেন্দ্র মোদী স্পষ্ট ইঙ্গিত দিলেন শীঘ্রই হবে জম্মু কাশ্মীর রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন।

শুধু তাই নয়, এইবার জম্মু-কাশ্মীরের জনপ্রতিনিধি হবেন তাঁদের লোকেরাই বলে জানিয়েছেন মোদী। এদিন তিনি জানান, ১৯৪৭ সালের পর যাঁরা পাকিস্তান ছেড়ে কাশ্মীরে এসে আশ্রয় নিয়েছিলেন, তাঁরা এতদিন লোকসভা ভোটে অংশ নিতে পারলেও স্থানীয় নির্বাচনগুলিতে তাঁদের মতদানের অধিকার ছিল না। এতদিনে বিশেষ মর্যাদা উঠে যাওয়ায়, এবার থেকে তাঁরাও স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন।

তবে লাদাখের বিষয়টা আলাদা। এই অংশ বরাবরের জন্যই কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল হিসেবে থাকবে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী কাশ্মীরবাসীকে আশ্বস্ত করে বলেছেন দ্রুতই আগের মতো বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে উপত্যকায়। উপত্যকার মানুষই বিধায়ক হবেন, মন্ত্রী হবেন, মুখ্যমন্ত্রী হবেন। তার আগে পর্যন্ত কেন্দ্রের হাতেই থাকবে রাজ্যের দায়িত্ব।