নিষিদ্ধ সংগঠন 'শিখ ফর জাস্টিস' এর সঙ্গে জড়িত একটি মামলার তদন্তের জন্য পঞ্জাবি অভিনেতা দীপ সিধুকে  কৃষি আইন বিরোধী আন্দোলনের নেতা বলদেব সিংহ সিরসা -সহ ৪০ জনকে তলব করেছে দেশের শীর্ষ তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ বা জাতীয় তদন্ত ব্যুরো। জিজ্ঞাসাবাদের জন্যই তাঁদের ডেকে পাঠান হয়েছে বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে নোটিশে। এছাড়াও খালসা সংগঠনের দুজনেকে তলব করা হয়েছে। ১৬০ ধারায় ফৌজদারি কার্যবিধির অধীনে নোটিশ পাঠান হয়েছে। 

এনআইএ-র এই নোটিশে রাজনৈতিক অভিসন্ধির ছায়া দেখছেন প্রতিবাদী কৃষকরা। ইতিমধ্যেই এনআইএ-এর নোটিশের তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বিজেপির প্রাক্তন জোটসঙ্গে শিরোমনি অকালি দল। দলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার নানা ভাবে কৃষক আন্দোলন প্রতিহত করার জন্য এ এজাতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। 

প্রায় একই সুরে অভিযোগ করেছে আন্দোলনকারী কৃষকরাও। তাঁদের অভিযোগ কেন্দ্রীয় সরকার তাঁদের আন্দোলনকে দুর্বল করতে এজাতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। কৃষক নেতা বলবীর সিং রাজেওয়াল জানিয়েছেন নোটিশ প্রাপ্তরা কোনও এজেন্সির সামনে উপস্থিত হবেন না। আন্দোলনকারী কৃষক নেতারা জানিয়েছেন, আন্দোলনকারীদের সহযোগিতার জন্য অনেকেই লঙ্গর চালাচ্ছেন, লজিস্টিক তাঁবুর মত প্রয়োজনীয় উপাদান দিয়ে তাঁদের দিচ্ছেন। সেই সব সংগঠন ও ব্যক্তিদের হুমকি দেওয়ার জন্যই এই নোটিশ পাঠান হয়েছে। তাই কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার এই নোটিশেরও তীব্র বিরোধিতা করা হয়েছে আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে। কৃষি সংগঠনগুলি একটি বিবৃতি জারি করে জানিয়েছে, আন্দোলনকারীদের যে নোটিশ দেওয়া হয়েছে তা অত্যান্ত নির্লজ্জকর ঘটনা। এটির মাধ্যমে সরকারের সংবেদনশীলতা প্রকাশ পায় না।  

কৃষি আইন বাতিল ছাড়া আর কী দাবি জানতে চাইলেন কৃষি মন্ত্রী, আইনের পক্ষেই সওয়াল অমিত শাহর ...

দেশের এক চতুর্থাংশ মানুষই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, তেমনই দাবি CSIR-এর সমীক্ষা রিপোর্টে ...
  ২৬ নভেম্বর থেকে দিল্লির সীমানায় তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে অবস্থান বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন কৃষকরা। আইন প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা অবস্থান বিক্ষোভ চালিয়ে যাবেন বলেও জানিয়েছেন। ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে ৯টি বৈঠক হয়েছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোনও সমাধান সূত্র পাওয়া যায়নি। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ দিয়েছে আপাতত নতুন তিনটি কৃষি আইন কার্যকর কর যাবে না। এই অবস্থায় আগামী মঙ্গলবার কৃষকদের সঙ্গে ১০বার বৈঠকে বসবে সরকার।