ভারতে তিনি কোনও ভাবেই ফিরতে চান না তিনি।  ব্রিটেনের আদালত তাঁকে ভারত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিলে আত্মহত্যা করবেন বলে হুমকি দিলেন নীরব মোদী।  পঞ্জার ন্যাশনাল ব্যাংকের ১৩,৫০০ কোটি টাকা তছরুপ ও আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। তিনি অবসাদে চলে যাচ্ছেন বলে দাবি করে নীরব মোদীর আইনজীবী ব্রিটেনের একটি আদালতে জামিনের আবেদন করেছিলেন বলে জানা গিয়েছে। 


বুধবার ব্রিটেনের একটি আদালত চতুর্থবারের জন্য নীরব মোদীর জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়েছে। নীরব মোদীকে আদালত গৃহবন্দি থাকার প্রস্তাব দিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। বুধবার নীরব মোদীর নিরাপত্তা দ্বিগুণ বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও জানা গিয়েছে।  নীরব মোদীর মামলার পরবর্তী শুনানির দিন পড়েছে ৪ ডিসেম্বর।  ব্রিটেনের একটি আদালতে তাঁর জামিন নাকচ হওয়ার পরই নীরব মোদী আত্মহত্যার হুমকি দেন। তিনি আদালতে জানিয়েদেন, কোনওভাবেই তিনি ভারতে ফিরতে চান না।  ব্রিটেনের আদালত  তাঁকে ভারতে পাঠাতে চাইলে তিনি আত্মহত্যা পর্যন্ত করতে পারেন।

পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকের প্রধান অভিযুক্ত নীরব মোদী ও তাঁর ভাইপো মেহুল চোসকি। আর্থিক দুর্নীতি প্রকাশ্যে আসার আগেই গত বছর জানুয়ারির শেষের দিকে তাঁরা দেশ ছেড়ে পালান।  ১৪ মার্চ ৪৮ বছরের নীরব মোদীকে গ্রেফতার করে স্কটল্যান্ট ইয়ার্ডের পুলিশ ভারতে আর্থিক তছরুপের অভিযোগে গ্রেফতার করে। বর্তমানে তিনি দক্ষিণ পশ্চিম লন্ডনের ওয়ান্ডসওয়ার্থ কারাগারে বন্দি রয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।  ভারতীয় প্রশাসন নীরব মোদীকে দেশে আনার চেষ্টা করছে।  ব্যাপক অংকের আর্থিক তছরুপের অভিযোগে দেশীয় আইনের মুখোমুখি করতে  তৎপর ভারত সরকার।