করোনাভাইরাসের পরীক্ষার জন্য এখন আর পরীক্ষাকেন্দ্রে গিয়ে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে না। মাত্র এক সেকেন্ডেই জানা যাবে আপনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কি না? কারণ করোনাভাইরাসের পরীক্ষার জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছ ভারতীয় সেনাবাহিনীর বেশ কয়েকটি সারমেয়কে। তারাই এবার থেকে বলতে পারবে আপনি মারাত্মক ছোঁয়াচে রোগে আক্রান্ত কি না। মিরাটের আরভিসি সেন্টার জানিয়েছে, দুটি কুকুরকে করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়ার জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এখনও পর্যন্ত আরও আটটি কুকুরকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ চলছে। সেনা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, কুকুরগুলি মূত্র ও ঘামের নমুনা শুঁকেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত কিনা তা নির্ণয় করতে পারচ্ছে। বর্তমানে কুকুরগুলি রাখা হয়েছে চন্ডীগড়ে। সেনাবাহিনীর সদস্যরা করোনা আক্রান্ত কিনা তা সনাক্ত করেছে সেগুলি। মাত্র দু সেকেন্ডেই করোনা আক্রান্তের নমুনা পরীক্ষা করতে পারছে। এখনও পর্যন্ত ৯৫ শতাংশ সঠিক  হয়েছে পরীক্ষা। 

ভারতীয় সেনা বাহিনীর ক্যাম্পে গিয়ে দেখা গেল একটি মজাদার ছবি। যেখানে স্প্যানিয়াল কুকুর ছোট ছোট বাক্সগুলি শুঁকছে। তবে সেগুলি কোনও বিস্ফোরকের বাক্স নয়।সারমেয়গুলি কোভিড ১৯ পরীক্ষার জন্য মুত্রের নমুনা সনাক্ত করছে। শিকারী কুকুর ক্যাসপারের সঙ্গে জায়া এই কাজে মগ্ন রয়েছে। দুটি সারমেয় ৩ হাজার ৮০০টি নমুনা পরীক্ষা করছে। যার মধ্যে ২২জনই করোাভাইরাসে আক্রান্ত বলেও জানান হয়েছে সেনা বাহিনীর তরফ থেকে। প্রশিক্ষক যখন বাক্সের কাছে বসেছিলেন তখন কুকুরগুলি চিহ্নিত করে দিচ্ছিল কোনটি আক্রান্ত ব্যক্তি আক্রান্ত। দেশে যেখন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছিল, তখনই অর্থাৎ গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে সশস্ত্র বাহিনীতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংথ্যা ছিল ২০ হাজার। কিন্তু সংসদে বলা হয়েছিল  সেনা বাহিনীতে আক্রান্তের পরিমাণ ছিল ১৬ হাজার। সেই পরিস্থিতিতে সারমেয়র মাধ্যমে আক্রান্তকে চিহ্নিত করার চিন্তাভাবনা শুরু করেছিল। সেপ্টেম্বর থেকে আক্রান্তদের করোনার নমুনা সনাক্ত করা জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। 

সেনা সূত্রের খবর ইতিবাচক কেসগুলি তাড়াতাড়ি সনাক্ত করতে ও সাধারণ আরটি পিসিআর পরীক্ষার ফলাফল আসার আগে এইগুলি আলাদা করেতে কুকুরগুলির পরীক্ষা ক্ষমতা বাড়াতে ব্যবহার করা হয়েছে। সেনা সূত্রের খবর কুকুরগুলিকে সম্পূর্ণ রূপে প্রশিক্ষণ দিতে ৩৬ সপ্তাহ সময় লাগে। ভারতীয় সেনা বাহিনীর সদস্যরা এটি ৮ সপ্তাহের মধ্যেই করে দেখিয়েছেন। 

তবে ব্রিটেন ফিনল্যান্ড রাশিয়া জার্মানিসহ  বিশ্বের আরও বেশ কয়েকটি দেশ করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের সন্ধান করতে সারমেয়র ব্যবহার করতে শুরু হয়েছে। বিমানবন্দর ও রেল স্টেশনগুলিকে যাত্রীদের ক্রিনিং-এর জন্য কোভিড ১৯ সনাক্তকরণের জন্য প্রশিক্ষিত সারমেয় মোতায়েন করা হয়েছে। কোভিড আক্রান্তকে জানতে ভারতীয় সেনাবহিনী প্রথম পর্বে দুটি কুকুরকে প্রক্ষিণ দিয়েছে। আপাতত তা সামরিক ক্ষেত্রেই সীমাবদ্ধ থাকবে বলেও জানান হয়েছে। 

বিশ্বজুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে করোনাভাইরাসের ৪০০০ রূপ, নতুন রূপ নিয়ে সতর্ক করল ব্রিটেন ...

কংগ্রেস নেতার বিদায়ে চোখে জল প্রধানমন্ত্রীর, নিজেকে গর্বিত হিন্দুস্তানী বললেন গুলাম নবি আজাদ ...
বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন যখন করোনাভাইরাস , যখন করোনাভাইরাসদেহে প্রবেশ কর তখন এগুলি ক্ষতিগ্রস্ত টিসুকে উদ্বায়ী বিপাকীয় বায়োমারকারগুলি প্রকাশ করে যা মেডিক্যাল সনাক্তকরণ কুকুর দ্বারা রোগ সনাক্তকরণের জন্য রোগের হিবেসে ব্যবহৃত হয়। এই কুকুরগুলি কোভিড ১৯ -এর নমুনা শুঁকতে বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। আর সেই কারণে তাদের অন্য কোনও কাজ দেওয়া হচ্ছে না। এই কুকুরগুলির ঘ্রাণ শক্তি ৯ বছর বয়স পর্যন্ত চূড়ান্ত থাকে। পরবর্তী সময় এগুলি অবসর নেয়। সেনা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানান হয়েছে এটি স্বাভাবিক পরীক্ষা পদ্ধতির বিকল্প নয়। তবে রোগটি দ্রুত ও অল্প সময় সনাক্তকরণের সহায়তা করে।