শুধু রাহুল গান্ধীই নন, বিজেপি ও বিরোধী দলের এই সাংসদ-বিধায়করাও তাদের সদস্যপদ হারিয়েছেন, দেখুন তালিকা

| Mar 24 2023, 04:05 PM IST

Rahul Gandhi

সংক্ষিপ্ত

নিয়ম অনুযায়ী, কোনো সাংসদ বা বিধায়কের দুই বছর বা তার বেশি সাজা হলে তার সদস্যপদ বাতিল হয়ে যায়। রাহুলের ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। তবে রাহুলই প্রথম নেতা নন যিনি সদস্যপদ হারিয়েছেন।

রাহুল গান্ধী প্রথম নেতা নন যিনি সদস্যপদ হারালেন। এর আগেও এমন অনেক সাংসদ ও বিধায়কের সদস্যপদ হারিয়েছেন, যাদের দুই বছর বা তার বেশি কারাদণ্ড হয়েছে আদালতে। আজ আমরা এমন কিছু নেতার কথা বলব, যাদের শাস্তির কারণে সংসদ বা বিধানসভা থেকে সদস্যপদ চলে গেছে। এটাও জেনে নিন কোন নিয়ম, যার মাধ্যমে বিধায়ক-সাংসদের সদস্যপদ বাতিল হয়?

শুক্রবার কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধীর লোকসভা সদস্যপদ বাতিল করা হয়েছে। এর আদেশও জারি করেছে লোকসভা সচিবালয়। মানহানির মামলায় রাহুলকে দোষী সাব্যস্ত করে বৃহস্পতিবার সুরাটের একটি আদালত তাকে দুই বছরের কারাদণ্ড দেয়। রাহুলের বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় মোদীর পদবী নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করার অভিযোগ আনা হয়েছিল। এই ঘটনায় গুজরাটের বিজেপি বিধায়ক ও প্রাক্তন মন্ত্রী পূর্ণেশ মোদি রাহুলের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছিলেন।

নিয়ম অনুযায়ী, কোনো সাংসদ বা বিধায়কের দুই বছর বা তার বেশি সাজা হলে তার সদস্যপদ বাতিল হয়ে যায়। রাহুলের ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। তবে রাহুলই প্রথম নেতা নন যিনি সদস্যপদ হারিয়েছেন। এর আগেও এমন অনেক সাংসদ ও বিধায়কের সদস্যপদ হারিয়েছে, যাদের দুই বছর বা তার বেশি কারাদণ্ড হয়েছে আদালতে।

আজ আমরা এমন কিছু নেতার কথা বলব, যাদের শাস্তির কারণে সদস্যপদ চলে গেছে। 

১. আজম খান: সমাজবাদী পার্টির শক্তিশালী নেতা এবং রামপুরের বিধায়ক আজম খানের সদস্যপদও চলে গেছে। আজম রামপুর থেকে টানা ১০ বার বিধায়ক নির্বাচিত হয়েছেন এবং সংসদ সদস্যও হয়েছেন। আজম খানের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিয়ে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তিন বছর আদালতে মামলা চললে আদালত তাকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেন। দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর আজম জামিন পেলেও বিধানসভার সদস্যপদ হারান। এর পর গত বছরের ডিসেম্বরে রামপুর সদর আসনের উপনির্বাচনে জয়ী হন ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী আকাশ সাক্সেনা।

২. আবদুল্লাহ আজম: সমাজবাদী পার্টির শক্তিশালী নেতা আজম খানের পর তার ছেলে আবদুল্লাহ আজমের বিধানসভা সদস্যপদও বাতিল করা হয়েছে। মোরাদাবাদের একটি বিশেষ আদালত ১৫ বছরের পুরনো মামলায় সমাজবাদী পার্টির সাধারণ সম্পাদক আজম খান এবং তার বিধায়ক পুত্র আবদুল্লাহ আজমকে দুই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে। রামপুরের সোয়ার আসন থেকে বিধায়ক হয়েছেন আবদুল্লাহ আজম। এখন এ আসনে উপনির্বাচন হওয়ার কথা।

৩. বিক্রম সাইনি: বিক্রম সাইনি, যিনি মুজাফফরনগরের খাতৌলির বিধায়ক ছিলেন, তিনিও তার সদস্যপদ হারিয়েছেন৷ দাঙ্গায় জড়িত থাকার দায়ে বিক্রমকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। বিষয়টি ২০১৩ সালের। তখন মুজাফফরনগরে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়, সেই সময় বিক্রম সাইনি ছিলেন জেলা পঞ্চায়েত সদস্য এবং দাঙ্গায় তার নাম আসে। এ মামলায় তাকে কারাগারেও যেতে হয়েছে। বিক্রম সাইনি জেল থেকে বেরিয়ে আসার পর ভারতীয় জনতা পার্টি তাকে খাতৌলি থেকে প্রার্থী করে। এরপর বিপুল ভোটে জয়ী হন বিক্রম সাইনি। এমনকি ২০২২ সালের নির্বাচনেও, বিজেপি আবার তাকে তার প্রার্থী করেছিল এবং এবারও তিনি হাইকমান্ডের আস্থার সাথে বেঁচে ছিলেন। তখন খাতৌলি বিধানসভার একটি আসন সহ মুজাফফরনগরের ছয়টি আসনের মধ্যে বিজেপি মাত্র দুটি জিততে পারে। দাঙ্গার মামলায় বিক্রম সাইনিকে গত বছরের নভেম্বরে আদালত দুবার কারাদণ্ড দেয়। এ কারণে তার সদস্যপদ বাতিল করা হয়। খাতৌলি আসনটি শূন্য হলে তাঁর স্ত্রী রাজকুমারী সাইনিকে বিজেপি টিকিট দেয়। তবে উপনির্বাচনে পরাজিত হন তিনি।

৪. মহম্মদ ফয়জল: লাক্ষাদ্বীপের সাংসদ মহম্মদ ফয়জলকেও ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এরপর তার সদস্যপদ চলে যায়। লাক্ষাদ্বীপ লোকসভার উপনির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশনও বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল। যদিও পরে কেরালা হাইকোর্ট সাজা স্থগিত করে। এই মুহূর্তে এই বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন। ফয়জলের বিরুদ্ধে কংগ্রেস নেতা এবং প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পিএম সাঈদ এবং মহম্মদ সালিয়াকে আক্রমণের অভিযোগ আনা হয়েছিল। এ মামলায় ৩২ জনকে আসামি করা হয়, যার মধ্যে চারজনকে আদালত দোষী সাব্যস্ত করেন। এর মধ্যে মোহাম্মদ ফয়জলও ছিলেন।

৫. মমতা দেবী: ঝাড়খণ্ডের রামগড় বিধানসভা আসনের বিধায়ক মমতা দেবীকে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়েছিল, যার কারণে এই আসনটি খালি হয়ে গিয়েছিল। হাজারীবাগ জেলার একটি বিশেষ আদালত মমতাকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয়। এরা সকলেই ২০১৬ সালের দাঙ্গা ও খুনের চেষ্টার একটি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। মামলাটি রামগড় জেলার গোলায় হিংসাত্মক বিক্ষোভের সাথে জড়িত।

৬. খাব্বু তিওয়ারি: ভারতীয় জনতা পার্টির অযোধ্যার গোসাইগঞ্জ আসনের বিধায়ক ইন্দ্র প্রতাপ সিং ওরফে খাব্বু তিওয়ারির সদস্যপদ ২০২১ সালে চলে গিয়েছিল৷ খাব্বু তিওয়ারিকে জাল মার্কশিট মামলায় দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছিল এবং ১৮ অক্টোবর ২০২১-এ এমপি-বিধায়ক আদালত তাকে পাঁচ বছরের সাজা দিয়েছিল।

৭. কুলদীপ সিং সেঙ্গার: উন্নাও ধর্ষণ মামলায় দোষী সাব্যস্ত বিজেপি বিধায়ক কুলদীপ সিং সেঙ্গারও তার সদস্যপদ হারিয়েছেন৷ কুলদীপ সেঙ্গারকে ধর্ষণের মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেছে আদালত।

৮. অশোক চন্দেল: হামিরপুর জেলার প্রাক্তন ভারতীয় জনতা পার্টির বিধায়ক অশোক কুমার সিং চ্যান্ডেলকেও একটি হত্যা মামলায় আদালত যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেছে৷ এর পর চান্দেলের বিধানসভা সদস্যপদ চলে যায়।

৯. অনিল কুমার সাহনি: আরজেডি বিধায়ক অনিল কুমার সাহনিকে প্রতারণার মামলায় দিল্লির একটি সিবিআই আদালত দোষী সাব্যস্ত করেছিল৷ তাকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এ কারণে তাকে বিহার বিধানসভা থেকে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়। সাহনি, যিনি কুরহানি বিধানসভা আসনের প্রতিনিধিত্ব করেন, ২৯শে আগস্ট দোষী সাব্যস্ত হন এবং দুই দিন পরে তাকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ২০১২ সালে রাউস এভিনিউ আদালত তাকে ভ্রমণ না করেই জাল এয়ার ইন্ডিয়া ই-টিকিট ব্যবহার করে ভ্রমণ ভাতা পাওয়ার চেষ্টা করার জন্য দোষী সাব্যস্ত করেছিল। সেই সময় সাহনি, যিনি মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের জেডি(ইউ) এর সাথে ছিলেন, রাজ্যসভার সদস্য ছিলেন। তিনি ২৩.৭১ লক্ষ টাকার দাবি জমা দিয়েছিলেন। কয়েক মাসের মধ্যে তিনি দ্বিতীয় আরজেডি বিধায়ক হয়েছিলেন যাকে বিধানসভা থেকে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়েছিল। সংসদে দলের শক্তি এখন ৭৮-এ নেমে এসেছে, বিজেপির থেকে মাত্র এক বেশি।

১০. অনন্ত কুমার সিং: বিহারের মোকামার বিধায়ক অনন্ত কুমার সিংয়ের সদস্যপদও চলে গেছে। অনন্ত সিংয়ের বাড়ি থেকে অস্ত্র ও বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। এই মামলায় পাটনার একটি আদালত তাকে দোষী সাব্যস্ত করেছে। পরে তার সদস্যপদ চলে যায়।