গোটা বিশ্বের মত করোনা আতঙ্ক গ্রাস করেছে ভারতকেও। লাফিয়ে লাফিয়ে এদেশএ বাড়ছে কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের দেখা পাওয়া গিয়েছে কেরলে। মঙ্গলবার নতুন করে আরও ২ জনের শরীরে মিলেছে এই মারণ ভাইরাস। ফলে বর্তমানে কেরলে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১৪। আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছে একটি ৩ বছরের শিশুও। সম্প্রতি বাবা-মার সঙ্গে ইতালি থেকে ফেরে ওই শিশুটি। এবার তার মা-বাবার শরীরেও ধরা পড়েছে কোভিড-১৯ ভাইরাস। করোনা নিয়ে যখন হিমশিম অবস্থা কেরল প্রশাসনের তখন সেখানে নতুন করে আতঙ্ক তৈরি করেছে একদল বাদুড়ের মৃত্যু।

আরও পড়ুন: একসঙ্গে মরে পড়ে রয়েছে অসংখ্য বাদুড়, করোনা আতঙ্কের মাঝেই নতুন বিপদের গন্ধ কেরলে

কেরলের কোঝিকোড জেলার কারাসেরি পঞ্চায়েত  এলাকায় কারিমোলায় একসঙ্গে মৃত্যু হয়েছে অজস্র বাদুড়ের। এত বাদুড়ের মৃত্যু নিয়ে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে স্থানীয়দের মধ্যে। ইতিমধ্যে রাজ্যে পশুপালন দফতরকে গোটা বিষয়টি জানিয়েছে এলাকার মানুষ।

"ইতিমধ্যে ল্যাবে পরীক্ষা করার জন্য মৃত বাদুড়দের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। বাদুড়গুলিকে জ্বালিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি কবরও দেওয়া হয়েছে। খুব শীঘ্রই এতগুলি বাদুড়ের একসঙ্গে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে বলে আমারা আশাবাদী।" জানিয়েছেন জেলার পশুপালন দফতরের আধিকারিক ডঃ কেভি উমা। 

আরও পড়ুন: কর্মীদের কাজে খুশি নয় সরকার, বাতিল হল সপ্তাহে ২ দিনের ছুটি

এদিকে কোঝিকোডে ২টি পোলট্রি ফার্মের মুরগিদের মধ্যে বার্ডফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তার পরেই গত সোমাবার থেকে  রাজ্যে ১২ হাজার মুরগি নিধন যজ্ঞ শুরু হয়েছে। ভেঙ্গেরি ও কোডিয়াথুর এই দুটি এলাকার পোলট্রি ফার্মে বার্ডফ্লুতে মুগির মৃত্যু হয়েছে। তাই এই দুই এলাকা সংলগ্ন সমস্ত পোলট্রি ফার্মের মুগরি মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বাদুড়গুলির মৃত্যুও বার্ডফ্লুর কারণে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এরআগে ২০১৮ সালে কেরলে নিপা ভাইকরাস ভয়াবহ আকার ধারণ করেছিল। সেই সময় বাদুড় থেকেই এই ভাইরাস ছড়িয়েছিল বলে ধারণা করা হয়েছিল।