অস্বস্তি বাড়ল প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী এবং কংগ্রেস নেতা পি চিদম্বরমের। প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিশ জারি করল ইডি। অন্যদিকে সুপ্রিম কোর্টেও আপাতত স্বস্তি পেলেন না প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। কারণ গ্রেফতারি এড়াতে চিদম্বরমের করা আবেদন আপাতত প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের বিবেচনাধীন। প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ বিষয়টি নিয়ে কোনও নির্দেশ দেওয়ার আগে চাইলে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীকে গ্রেফতার করতেই পারে ইডি অথবা সিবিআই। 

আইএনএক্স অর্থ তছরুপ মামলায় চিদম্বরমের দায়ের কার আগাম জামিনের আবেদন খারিজ করে দিয়েছিল দিল্লি হাইকোর্ট। তার পরেই সুপ্রিম কোর্টে বিশেষ অবসরকালীন হলফনামা দায়ের করে দিল্লি হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আবেদন করেছেন কংগ্রেস নেতা। চিদম্বরমের এই আবেদনই আপাতত প্রধান বিচারপতির বিচারাধীন রয়েছে। তবে পাল্টা সুপ্রিম কোর্টে ক্যাভিয়েট দায়ের করেছে ইডি এবং সিবিআই। ফলে তাদের বক্তব্য না শুনে একতরফা রায় দিতে পারবে না শীর্ষ আদালত। 

এরই মধ্যেই বুধবার সকাল থেকে একাধিকবার চিদম্বরমের বাড়িতে হানা দিয়েছে সিবিআই আধিকারিকরা। প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীকে হেফাজতে নেওয়াই ছিল তাঁদের উদ্দেশ্য। যদিও, এ দিন সকাল থেকে পি চিদম্বরমের কোনও খোঁজ নেই। নতুন করে লুকআউট নোটিশ জারি হওয়ায় বিদেশেও যেতে পারবেন না তিনি। কার্যত এখন আত্মগোপন করে আছেন কংগ্রেসের এই অন্যতম শীর্ষ নেতা। 

কঠিন সময়ে অবশ্য দলকে পাশে পেয়েছেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। চিদম্বরমের সমর্থনে টুইট করেছেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধী এবং রাহুল গান্ধী। টুইটারে প্রিয়ঙ্কা লিখেছেন, 'রাজ্যসভার অন্যতম উচ্চশিক্ষিত এবং সম্মানীয় সদস্য চিদম্বরমজির আনুগত্যের সঙ্গে অর্থমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে কয়েক দশক ধরে আমাদের দেশের সেবা করেছেন। কোনওরকম রাখঢাক না রেখেই তিনি বরাবর এই সরকারের ব্যর্থতাগুলি সামনে নিয়ে এসেছেন। কিন্তু কাপুরুষরা কোনওদিনই সত্যিটা সহ্য করতে পারে না। তাই নির্লজ্জের মতো তাঁকে খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে। যাই হোক না কেন, আমরা তাঁর পাশেই আছি এবং একসঙ্গে লড়াই চালিয়ে যাব। 

আরও পড়ুন- সিবিআই হানা দিল বাড়িতে, সুপ্রিম কোর্টে দরজায় দরজায় ঘুরে খালি হাতে ফিরলেন চিদাম্বরম

আর চিদম্বরমের সমর্থনে রাহুল গান্ধী লিখেছেন, 'ইডি, সিবিআই এবং শিরদাঁড়াহীন সংবাদমাধ্যমের একাংশকে নিয়ে চিদম্বরমের চরিত্রহননে নেমেছে মোদী সরকার। ক্ষমতার এই নির্লজ্জ অপব্যবহারের আমি নিন্দা করছি।'