রাষ্ট্র সংঘের রিপোর্ট তুলে ধরে সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে আবারও পাকিস্তানকে নিশানা করল ভারত। রাষ্ট্র সংঘের রিপোর্টে বলা হয়েছিল পাকিস্তানের প্রায় ৬৫০০ জঙ্গি সন্ত্রাস চালাচ্ছে আফগানিস্তানে। যার মধ্যে প্রায় এক হাজার জঙ্গি জইশ ই মহম্মদর ও লস্কর ই তৈবার সদস্য। ভারতের কাশ্মীরও অশান্ত করার চেষ্টা করেছে জইশ জঙ্গিরা। রাষ্ট্র সংঘের এই রিপোর্ট তুলে ধরেই শুক্রবার ভারতের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের মনে রাখা উচিৎ গত বছরই বিবৃতি দেওয়ার সময় পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছিলেন, পাকিস্তানের প্রায় ৩০-৪০ হাজার জঙ্গি রয়েছে। সেই জঙ্গিদেরই কাশ্মীর অথবা কাবুলে আশান্তি ছাড়ানোর জন্য যে পাঠানো হচ্ছে না তার প্রমান করা হবে কী ভাবে। তবে অবিলম্ববে পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদে মদত দেওয়া বন্ধ করুক বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছে দিল্লি। 


সূত্রের খবর, পাকিস্তান ভারত ও আফগানিস্তানের মধ্যে বিভেদ তৈরি করতেও জঙ্গিদের মদত  দিচ্ছে। সেই কথা মাথায় রেখেই ভারত  হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে যে এই কাজ করতে লাহর কখনই সক্ষম হবে না। ভারত তো বটেই গোটা বিশ্বই জানে পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদের স্নায়ু কেন্দ্র। 

গর্ভবতী হাতি হত্যায় রাজনৈতিক উত্তাপ ক্রমশই বাড়ছে, মুখ খুললেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী ...
একটি সূত্র জানাচ্ছে পাকিস্তান এখনও সন্ত্রাসবাদের স্নায়ু কেন্দ্র। দেশের প্রথম সারির নেতৃত্বই সন্ত্রাসবাদে মদত দিয়ে থাকে বলেও অভিযোগ। সূত্রটি জানাচ্ছে পাকিস্তানের মাটি ব্যবহার করেই জঙ্গিরা সীমান্তে উত্তেজনার ছক কষতে সক্ষম হয়। রাষ্ট্র সংঘের সিকিওরিটি কাউন্সিলের পক্ষ থেকে আরও বলা হয়েছে, রিপোর্ট নিয়ে তদন্তে না নেমে এখনই পাক প্রশাসনের উচিৎ জঙ্গি ঘাঁটিগুলি চিহ্নিত করা। পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদ বন্ধ করতে  উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা। সূত্রের খবর এই রিপোর্টকে পুরোপুরি সমর্থন করেছে ভারত। 

করোনার কোপে কি প্রকল্পও, আগামী এক বছর নতুন পরিকল্পনা নয় বলে ঘোষণা অর্থমন্ত্রকের

তবে বৃহস্পতিবারই পাকিস্তানের বিদেশ মন্ত্রকের তরফে বিবৃতি দিয়ে জানান হয়েছে, রাষ্ট্র সংঘের রিপোর্ট ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। তীব্র সমালোচনাও করা হয়েছে।  পাশাপাশি ভারতের পক্ষ থেকে যে অভিযোগ করা হয়েছে তাও প্রত্যাক্ষাণ করা হয়েছে।

শুধু ভারত নয় পাকিস্তান জঙ্গি পাঠাচ্ছে আফগানিস্তানেও, ভয় ধরানো রিপোর্ট রাষ্ট্র সংঘের ...