যখন বিদেশমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন, তখন অগুনতি পাকিস্তানি নাগরিকের সহায় হয়ে উঠেছিলেন তিনি। চিকিৎসার জন্য ভারতে আসতে গিয়ে ভিসা পাওয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা হলেই তাঁর দ্বারস্থ হতেন পাকিস্তানিরা। আর এমন বিপদে ভারতীয় বা পাকিস্তানিদের মধ্যে কোনও ভেদাভেদ না করেই সাহায্যের হাত বাড়়িয়ে দিতেন সুষমা স্বরাজ। তাই বোধহয়, সুষমার মৃত্যুতে পাকিস্তানেও শোকের ছায়া। 

শুধু পাকিস্তানের আমজনতাই নয়, সুষমার মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে টুইট করেছেন পাকিস্তানের বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি দফতেরর মন্ত্রী ফাওয়াদ হোসেন। টুইটারে তিনি  লেখেন, 'টুইটারে ওঁর সঙ্গে কথার লড়াইগুলো মিস করব। নিজের কৃতিত্বেই উনি এক অন্য উচ্চতায় পৌঁছেছিলেন। সুষমা স্বরাজের পরিবারকে সমবেদনা জানাই।'

আরও পড়ুন- সুষমার প্রয়াণে শোকপ্রকাশ সরবজিতের দিদি দলবীরের

আরও পড়ুন- 'এক টাকা নিয়ে যান', মৃত্যুর ঠিক আগে কুলভূষণ মামলার আইনজীবীকে ফোন সুষমার

প্রসঙ্গত পাকিস্তানে এই মন্ত্রীর সঙ্গেই গত মার্চে পাকিস্তানে দু'টি হিন্দু মেয়ের অপহরণ নিয়ে কথার লড়াইতে জড়িয়েছিলেন সুষমা। প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী তীক্ষ্ণ যুক্তি এবং শব্দবাণে কার্যত কোণঠাসা পড়েছিলেন ফাওয়াদ হোসেন। 

তবে শুধু পাকিস্তানের মন্ত্রীই নন, পাকিস্তানের বহু নাগরিকই সুষমার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। কেউ লিখেছেন, 'আপনিই একার হাতে কুটনীতির গতিপ্রকৃতি বদলে দিয়েছিলেন এবং কুটনীতিতে ডিজিটাল মাধ্যমকে পূর্ণ মাত্রায়  ব্যবহার করেছিলেন। আপনার আত্মার শান্তি কামনা করি, পাকিস্তানের থেকে সমবেদনা জানাই।' অন্য এক পাক নাগরিক লিখেছেন, 'তিনি পাকিস্তানের এবং যাঁরা বিপদে পড়েছেন তাঁদের সবার বন্ধু ছিলেন। পাকিস্তানিরা অকৃতজ্ঞ হন না, আজ আমরাও দুঃখিত। #সুষমা স্বরাজ, আপনার আত্মার শান্তি কামনা করি।'

সোহেল নামে এক পাকিস্তানি লেখেন, 'সব ধরনের রাজনৈতিক ভেদাভেদ সরিয়ে সুষমা স্বরাজ একজন মা, স্ত্রী এবং দেশপ্রেমী ভারতীয় হয়ে উঠেছিলেন। ইন্দিরা গান্ধীর পরে একমাত্র মহিলা যিনি ভারতের বিদেশমন্ত্রী হয়েছিলেন। নিঃসন্দেহে তিনি ভারত তাদের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মস্তিষ্ককে হারালো। পাকিস্তানের থেকে সমবেদনা।'