রবিবার ২৯ ডিসেম্বর, দেহত্যাগ করলেন  পেজাওয়ার মঠ প্রধান বিশ্বেশ্ব তীর্থ স্বামী। তার বয়েস হয়েছিল ৮৯ বছর। কর্নাটকের উডুপিতে অবস্থিত আস্থা মঠগুলির অন্যতম ছিল এই পেজাওয়ার মঠ। বার্ধক্যজনিত কারণেই  বিশ্বেশ্ব তীর্থ স্বামীজি শেষ নিশ্বাস ত্য়াগ করেন।  

আরও পড়ুন, আরএসএস-এর চাড্ডিওয়ালাদের অসম চালাতে দেব না,হুংকার রাহুলের

শনিবার থেকেই তাঁর শরীরের অবস্থার অবনতী হওয়ায় তাঁকে উডুপির একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে আগে থেকেই আইসিইউ ইউনিটের সমস্ত বন্দোবস্তগুলি প্রস্তুত রাখা হয়েছিল।  পরে স্বামীজি নিজ মঠে আসার ইচ্ছাপ্রকাশ করলে তাঁকে পেজাওয়ার মঠ নিয়ে আসা হয়। সেখানেই রবিবার সকাল সাড়ে ৯টা নাগাদ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। স্বামীজির শারীরিক অবনতীর কথা জানতে পেরে, উডুপি গিয়েছিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বিজেপি নেত্রী উমা ভারতী। তিনি রবিবার সকালে গিয়ে বিশ্বেশ্ব তীর্থ স্বামীর সঙ্গে দেখাও করেন।

আরও পড়ুন, একসঙ্গে আত্মহত্যা করেছিলেন ১১ জন, সেই বাড়িতেই চ্যালেঞ্জ নিয়ে এবার থাকতে আসছেন নতুন অতিথি

১৯৮৮ সালে দর্শকের মাত্র ৮ বছর বয়সে বিশ্বেশ্ব তীর্থ স্বামীকে সন্ন্যাসের ব্রত দেওয়া হয়েছিল। সাধু ও দর্শনার্থীরা বিশ্বেশ্ব তীর্থ স্বামীর দ্রুত পুনরুদ্ধারের জন্য বিশেষ প্রার্থনা করেছিলেন। কিন্তু শেষ অবধি বিশ্বেশ্ব তীর্থ স্বামী দেহ ত্য়াগ করেন। অপরদিকে স্বামীজির মৃত্যুর খবর পেয়ে স্থানীয় বিজেপি বিধায়করঘুপতি ভাট সেখানে যান । তিনি জানিয়েছেন, স্বামীজির নিথর দেহ আপাতত আজ্জারাকাড়ুতে মহাত্মা গান্ধী ময়দানে রাখা থাকবে তিন ঘণ্টার জন্য। ইতিমধ্যেই কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পা  বেঙ্গালুরু থেকে উডুপির উদ্দেশে রওনা হয়ে গিয়েছেন। পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় স্বামীজির শেষকৃত্ব সম্পন্ন করা হবে।