ধনীদের হাতে অর্থ থাকলেও আয়কর জমা দিচ্ছেন না বেশিরভাগ ভারতীয়। দেশের ৩কোটি মানুষ বিদেশ ভ্রমণে গেলেও আয়কর জমা দিচ্ছেন কেবল দেড় কোটি ভারতীয়। দেশবাসীর এই মানসিকতা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

শরীরে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ, সোজা যাত্রীকে বেলেঘাটা আইডিতে পাঠাল বিমানবন্দর

দেশের আর্থিক পরিস্থিতি ভালো নয়। একের পর এক বিশল্যকরণী দিয়েও অবস্থা ফেরানো যাচ্ছে না রাজকোষের। বেগতিক দেখে এলআইসি-র শেয়ার বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয়  সরকার। এবার রাজকোষের হাল ফেরাতে দেশবাসীকে নিয়ম মেনে আয়কর দেওয়ার আহ্বান জানালেন প্রধানমন্ত্রী। সম্প্রতি দেশবাসীর বিদেশ ভ্রমণের তথ্য় উল্লেখ করে মোদী বলেন, গত বছর ব্য়বসা বা ভ্রমণের কারণে বিদেশে গিয়েছেন তিন কোটি ভারতীয়। কিন্তু তার মধ্য়ে কেবল দেড় কোটি দেশবাসী আয়কর জমা দিয়েছেন। মানে ১৩০ কোটি  ভারতীয়র মধ্য়ে দেড় কোটি দেশবাসী আয়কর দিয়েছেন। যা দেশের অর্থনীতির পক্ষে মোটেও সুখকর নয়। 

এবারের মত বিদায় ঘণ্টা বাজল শীতের, শুক্রবার থেকে বাড়ছে তাপমাত্রা

এই বলেই থেমে থাকেননি প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান, সারা দেশের মাত্র ২২০০ নাগরিকই বছরে এক কোটি টাকা আয় করেন। এই হিসেবও আমাদের মেনে নিতে হচ্ছে। দেশবাসীকে বুঝতে হবে, আয়কর আমাদের দেশের উন্নয়নে কাজে লাগে। তাই এর গুরুত্ব অনস্বীকার্য। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় বাজেট  পেশ করেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। মোদীর মতে, এখন আগের মতো নিয়মের ঘেরাটোপে আটকে নেই আয়কর ব্য়বস্থা। এখন পুরোপুরি  জনগণের স্বার্থেই আয়করের নিয়মকানুন করা হয়েছে। দেশবাসীর ঘাড় থেকে নিয়মের বোঝা কমাতেই এই ব্য়বস্থা করেছে সরকার। দেখা যাচ্ছে, যারা আয়কর জমা দিচ্ছেন না তাদের বোঝা বইতে হচ্ছে কর জমা দেওয়া নাগরিকদের। একটা সুস্থ স্বাভাবিক অর্থনীতিতে যা কখেনাই কাম্য নয়।  

কলকাতা মেট্রো ছত্রিশ ছুঁইছুঁই, ছবিতে ফিরে দেখা যাক সেই ইতিহাস

কদিন আগেও ৫ ট্রিলিয়ন ডলার ইকোনমির কথা বলত মোদী সরকার। কিন্তু জিডিপির  হার পড়ে যাওয়ায় সাময়িকভাবে বিজেপির মুখ থেকে উবে গিয়েছিল সেই অর্থনীতির স্বপ্ন। কিন্তু সম্প্রতি একটি সংবাদপত্রের সম্মেলনে সেই কথা উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন , ২০২৫ -এর মধ্য়ে ৫ ট্রিলিয়ন ডলার অর্থনীতির লক্ষ্যমাত্রা রেখেই এগোচ্ছে সরকার। তার জন্য় যা যা কাজ করার তা করবে অর্থমন্ত্রক। 

প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, এবার থেকে ছোট শহরের অর্থনৈতিক উন্নয়নের দিকে নজর দেবে সরকার। বিশেষ করে জোর দেওয়া হবে টায়ার-২ ও টায়ার-৩ শহরের। এখন আর সময় নষ্ট করবে  না সরকার।