এবারে শীতের মেজাজ ছিল খামখেয়ালি। হাড়কাঁপানো শীত যেমন অনুভব করেছে রাজ্যবাসী তেমনি পৌষ ও মাঘের শীতে এবার বৃষ্টির দেখছে শহরবাসী। তবে গত সপ্তাহে পশ্চিমী ঝঞ্ঝা বিদায়  নিতে ফের নেমেছিল তাপমাত্রা। বিদায় নেওয়ার আগে শেষ একটা ঝোড়ো ইনিংস খেলেছিল শীত। চলতি সপ্তাহের শুরুতেই  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমে গিয়েছিল স্বাভাবিকের থেকে ৪ ডিগ্রি নিচে। তবে এবারের মত শীতের  বিদায়ের সময় এসে গিয়েছে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে শুক্রবার থেকে ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করবে তাপমাত্রা। দিন ও রাত দুটোর তাপমাত্রাই ক্রমশ বাড়বে। ফলে অনুভূত হতে থাকবে গরম। আগামী কয়েকদিন শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা নেই রাজ্যে।

এদিকে বৃহস্পতিবার থেকেই শীতের বিদায় পর্ব শুরু হয়েছে কলকাতায়। এদিন কলকাতায় ২ ডিগ্রি বেড়েছ তাপমাত্রা। যদিও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৪.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের ৩ ডিগ্রি নিচে। বুধবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৬.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, স্বাভাবিতের থেকে ২ ডিগ্রি কম। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ ছিল ৩০ থেকে ৯৬ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় কোনও বৃষ্টি হয়নি শহরে।

তবে এদিনও সকালে শীতের আমেজ অনুভূত হয়েছে কলকাতায়। ভোরের দিকে হালকা কুয়াশা থাকলেও পরে বেলা বাড়তেই  আকাশ পরিষ্কার হয়ে যায়। বেলা বাড়তেই বাড়ে তাপমাত্রাও। রবিবারের মধ্যে ৩ ডিগ্রি তাপমাত্রা বাড়তে পারে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। আগামী চির দিন শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা নেই রাজ্যে। 

এদিকে পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে জম্মু-কাশ্মীরে বৃষ্টি চলছে। তবে আগামী কয়েকদিনে কলকাতার মতই  তাপমাত্রা বাড়বে উত্তর-পশ্চিম ও মধ্য ভারত জুড়ে।  যদিও বৃহস্পতিবারও ওড়িশায় শৈত্যপ্রবাহ চলবে। ওড়িশা ও উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলিতে আগামী ৪৮ ঘণ্টায় ভারী কুয়াশার সম্ভাবনা রয়েছে।