দেশের ইতিহাসের অজানা বীরদের শ্রদ্ধায় প্রধানমন্ত্রী মোদী, যোগ দেবেন বিশেষ সম্মানজ্ঞাপন অনুষ্ঠানে

| Nov 24 2022, 08:58 PM IST

PM Modi
দেশের ইতিহাসের অজানা বীরদের শ্রদ্ধায় প্রধানমন্ত্রী মোদী, যোগ দেবেন বিশেষ সম্মানজ্ঞাপন অনুষ্ঠানে
Share this Article
  • FB
  • TW
  • Linkdin
  • Email

সংক্ষিপ্ত

২০২২ সালের নভেম্বরে, প্রধানমন্ত্রী মোদী একটি পাবলিক প্রোগ্রাম 'মানগড় ধাম কি গৌরব গাথা'-তে যোগ দিয়েছিলেন এবং ভিল স্বাধীনতা সংগ্রামী শ্রী গোবিন্দ গুরুকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ২৫শে নভেম্বর নয়াদিল্লির বিজ্ঞান ভবনে সকাল ১১টায় লাচিত বারফুকানের ৪০০ তম জন্মবার্ষিকীর বছরব্যাপী উদযাপনের সমাপ্তি অনুষ্ঠানে ভাষণ দেবেন। ভারতের ইতিহাসের সেই বীরদের সম্মান জানানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী মোদী বরাবর চেষ্টা করে গিয়েছেন যাদের অবদান যথাযথ স্বীকৃতি পায়নি। সাম্প্রতিক অতীতে এমন অসংখ্য উদাহরণ রয়েছে, যখন প্রধানমন্ত্রী এই ধরনের অজ্ঞাত নায়কদের যথাযথ গুরুত্ব, সম্মান দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

২০২২ সালের নভেম্বরে, প্রধানমন্ত্রী মোদী একটি পাবলিক প্রোগ্রাম 'মানগড় ধাম কি গৌরব গাথা'-তে যোগ দিয়েছিলেন এবং ভিল স্বাধীনতা সংগ্রামী শ্রী গোবিন্দ গুরুকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছিলেন। ২০২২ সালের নভেম্বরে, প্রধানমন্ত্রী বেঙ্গালুরুতে শ্রী নাদাপ্রভু কেম্পেগৌড়ার ১০৮ ফুট লম্বা ব্রোঞ্জ মূর্তি উন্মোচন করেন। এর মাধ্যমে শহরের প্রতিষ্ঠাতা নাদাপ্রভু কেম্পেগৌড়ার অবদানকে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। ২০২২ সালের জুলাই মাসে প্রধানমন্ত্রী অন্ধ্রপ্রদেশের ভীমাভারমে কিংবদন্তি স্বাধীনতা সংগ্রামী আলুরি সীতারামা রাজুর বছরব্যাপী ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উদযাপনের সূচনা করেছিলেন,

Subscribe to get breaking news alerts

২০২২ সালের জুন মাসে, প্রধানমন্ত্রী ‘ক্রান্তি গাথা’ উদ্বোধন করেন, রাজভবন মুম্বাই-এ ভূগর্ভস্থ ব্রিটিশ যুগের বাঙ্কারের ভিতরে ভারতীয় বিপ্লবীদের একটি নতুন তৈরি গ্যালারি। বাঙ্কারটি ২০১৬ সালে রাজভবনের নীচে আবিষ্কৃত হয়েছিল। ভারতীয় বিপ্লবীদের এই গ্যালারিতে রয়েছেন বাসুদেব বলবন্ত ফাড়কে, চাফেকর ভাই, বাল গঙ্গাধর তিলক, বীর সাভারকর, বাবারাও সাভারকর, ক্রান্তিগুরু লাহুজি সালভে, অনন্ত লক্ষ্মণ কানহেরে, রাজগুরু, মাদাম ভিকা।

২০২১ সালের নভেম্বর মাসে প্রধানমন্ত্রী রাঁচিতে ভগবান বিরসা মুমুর উদ্যান সহ সেনানিন্ডা মন্দিরের উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রীর ভিশনের অধীনে, বিভিন্ন রাজ্য ও অঞ্চলের আদিবাসী মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিকে লালন করে, দশটি আদিবাসী মুক্তিযোদ্ধা জাদুঘরও তৈরি করা হচ্ছে। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে, প্রধানমন্ত্রী উত্তর প্রদেশের বাহরাইচে মহারাজা সুহেলদেব স্মৃতিসৌধের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন।

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে, প্রধানমন্ত্রী পানিপথের বিভিন্ন যুদ্ধের বীরদের সম্মান জানাতে 'ব্যাটলস অফ পানিপথ মিউজিয়াম', পানিপথের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন। এই আনুষ্ঠানিক অনুষ্ঠানগুলি ছাড়াও, প্রধানমন্ত্রী মোদি নিশ্চিত করেন যে তিনি এই জাতীয় বেশ কিছু অজ্ঞাত নায়কদের স্মরণ করেন এবং উল্লেখ করেন এবং সময়ে সময়ে তাঁর সভা, জনসাধারণের বক্তৃতা, টুইট এবং এমনকি অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় তাদের অবদান স্মরণ করেন।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী বেশ কয়েকবার স্বাধীনতা আন্দোলনে রানি কিত্তুর চন্নাম্মার অবদানের কথা স্মরণ করেছেন, যার মধ্যে ‘আজাদি কা অমৃত মহোৎসব’ উদ্বোধন এবং এই বছরের স্বাধীনতা দিবসের ভাষণেও তাঁর উল্লেখ করেছেন। ২০১৫ সালে প্রধানমন্ত্রী রানী গাইদিনলিউ-এর উপর একশো টাকার স্মারক মুদ্রা এবং পাঁচ টাকার প্রচলন মুদ্রা জারি করেছিলেন।