প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাজ্যসভায় রাষ্ট্রপতির বাজেট অধিবেশন বক্তৃতার বিতর্কের জবাবি ভাষণে আন্দোলন বন্ধ করার আর্জি জানিয়েছেন কৃষকদের কাছে। একই সঙ্গে তিনি বলেন, এমএসপি বা নূন্যতম সহায়ক মূল্যের ব্যবস্থা কার্যকর থাকবে। কৃষি বিলের পক্ষে মতামত দিতে গিয়ে তিনি বলেন, তাঁর পূর্বসুরী মনমোহন সিং-এর কথাও উল্লেখ করে কংগ্রেসের তীব্র সমালোচনা করেন। 

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সোমবার রাজ্যসভা থেকে কৃষকদের উদ্দেশ্যে বলেন  আপনারা বিক্ষোভ শেষ করুন। আলোচনার মাধ্যমেই সমস্যা সমাধানের কথাও বলেন তিনি।একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার কৃষকদের সঙ্গে আলোচনার জন্য তৈরি রয়েছে। তিনি বলেন সংসদ থেকেই কৃষকদের আলোচনার জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। নূন্যতম সহায়ক মূল্য বা মান্ডি প্রথা নিয়ে কেন যাতে ভুল তথ্য না ছড়ান তার জন্যও আবেদন জানান প্রধানমন্ত্রী। কৃষকদের উন্নতির জন্যই এই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি বলেন আমাদের পিছিয়ে নয় এগিয়ে যেতে হবে। এই সংস্কারগুলি আমাদের একটি সুযোগ দেবে বলেও জানিয়েছেন। 

এদিন রাজ্যসভায় কৃষি আইন নিয়ে কংগ্রেসের বিরোধিতারও তীব্র সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন, কংগ্রেস কৃষি আইন নিয়ে সমালোচনা করছে। কিন্তু প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংই কৃষি ক্ষেত্রে সংস্কার চেয়েছিলেন বলেও তিনি দাবি করেন। তিনি বলেন, মনমোহন সিং বলেছিবেন, ভারতের বিপুল সম্ভাবনাকে একটি বড় সাধারণ বাজার হিসেবে উপলব্ধি করে ভারতের পথে আসা সমস্ত প্রতিবন্ধকতা সরিয়ে ফেলতে হবে আমাদের। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী কৃষকদের জন্য একটি মুক্ত বাজারের দেওয়ার কথা বলেছিলেন। একই সঙ্গে ভারতকে একটি বড় প্রচলিত বাজারে পরিণত করার  কথাও বলেছিলেন তিনি। কংগ্রেসের গর্ব হওয়া উচিৎ মনমোহন সিং এই কথা বলেছিলেন। কিন্তু বর্তমানে কংগ্রেস কৃষি বিল নিয়ে ইউটার্ন নিয়েছে। কৃষি আইন নিয়ে তাঁর কথা না শুনলেও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর কথা যেন শোনা হয় সেই আবেদনও জানিয়েছেন তিনি।  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিনও বলেন কৃষি ক্ষেত্রে পরিবর্তনের সময় এসেছে। তিনি বলেন, আগের পরিকাঠামো এখন আর কৃষকদের লাভবান করতে পারবে না। আর সেই জন্যই সংস্কার অত্যান্ত প্রয়োজন বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

ক্রিকেটের ভগবানকে 'চূড়ান্ত' অপমান যুব কংগ্রেসের, রিহানাদের পাল্টা টুইট করাতেই কি অপমান ...

রাজ্যসভায় কৃষি আইন সংশোধনের কথা কৃষি মন্ত্রীর মুখে, তারপরেও থেকে গেল 'যদি' ...
মোদি সরকারের পাশ করা নতুন তিনটি কৃষি আইন বাতিলের দাবি জানিয়েছে গত ২৬ নভেম্বর থেকে দিল্লির উপকণ্ঠে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন পঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যের কৃষকরা। সমস্যা সমাধানে এখনও পর্যন্ত কৃষকদের সঙ্গে প্রায় ১১বার বৈঠক হয়েছে সরকারের। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোনও সমাধানসধান সূত্র বার হয়নি। তিনটি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে এখনও পর্যন্ত অনড় রয়েছেন আন্দোলনকারী কৃষকরা। যদিও সরকার জানিয়েছে ১৮ মাস পর্যন্ত আইনগুলি রদ করে আলোচনা করা হোক। কিন্তু তা মানতে রাজি নয় আন্দোলনকারীরা।