পাকিস্তানি, বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের খবর দিতে পারলে পাওয়া যাবে ৫০০০ হাজার টাকা পুরষ্কার। মহারাষ্ট্রের ওউরঙ্গাবাদে খোদ এই পোস্টার লাগিয়েছে মহারাষ্ট্র নব নির্মাণ সেনা(এমএনএস)। দেশে সিএএ প্রতিবাদের মাঝে এই পোস্টার ঘিরে  শুরু হয়েছে জোর বিতর্ক।  

'হিংসাকে প্রশ্রয় দেওয়া নিন্দনীয়', দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ে টুইট রাজ্যপালের

শিবসেনা মহারাষ্ট্রে ক্ষমতায় আসতেই দলের  নীতি রাতারাতি বদলে ফেলল এমএনএস। দলের কাণ্ডারী রাজ ঠাকরের নির্দেশে এবার 'মারাঠা মানুষ' বা মারাঠি ভাবাবেগ ছেড়ে হিন্দুত্বের পথ ধরছে সেনা।  সম্প্রতি ওউরঙ্গাবাদে সেই রাজনৈতিক পথ বদলের নির্দেশ চোখে পড়ল পোস্টারে। যেখানে অনুপ্রবশকারী ইস্যুকে সামনে রেখে মহারাষ্ট্রে জমি  পাকা করতে চাইছে রাজের সেনা। তার ফল স্বরূপ সম্ভাজি নগরে পড়েছে এই পোস্টার। 

নবীন পট্টনায়েকের দেওয়া মধ্যাহ্নভোজে মুখোমুখি অমিত-মমতা, অধরাই থাকল এনআরসি-এনপিআর

পোস্টারে  লেখা হয়েছে, কেউ রাজ্য়ের কোথায় পাকিস্তানি অথবা বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের তথ্য় দিতে পারলেই পাঁচ হাজার টাকা পাবেন। রাজ্য়ে রাজনৈতিক মহল বলছে, ২০১৪ সাল থেকে  নাসিক মিউনিসিপ্য়াল কর্পোরেশনে হাতছাড়া হওয়ার পর থেকেই সময় ভালো যাচ্ছে না রাজ ঠাকরের। অতীতে মারাঠা মানুষ এজেন্ডা  হাতিয়ার করে এগিয়ে খুব একটা লাভ হয়নি। সেই একই এজেন্ডাকে কাজে লাগিয়ে ভোট রাজনীতির ফসল তুলেছেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। এবার শিবসেনা , কংগ্রেস, এনসিপি মহাজোট রাজ্য়ে ক্ষমতায় এসেছে। সেকারণে অনুপ্রবেশের এজেন্ডাকে  আকড়ে ধরেছেন এই নেতা। 

মোবাইলের টর্চ জ্বেলে পুরুলিয়ার গ্রামে ঢুকলেন বাবুল সুপ্রিয়, গ্রামের লোক বললেন 'রাজনীতি'

প্রথম থেকেই বিজেপির  সিএএ, এনআরসি নীতির জোরদার সমর্থনকরেছেন এমএনএস প্রধান। মনে করা হচ্ছে, পুরোনো জমি  ফিরে পেতে এবার বিজেপির  দিকে ঝুঁকতে পারেন রাজ ঠাকরে। ইতিমধ্য়েই তাঁর দল পুনেতে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের হঠাতে  অভিয়ান শুরু করেছে। আগামী  দিনে এই অভিযানকে রাজ্য়ের সব জায়গায় ছড়িয়ে দিতে চাইছে এমএনএস।