তাঁর শরীরিক অবস্থার আরও অবনিত হয়েছে। নতুন করে ফুসফুসে সংক্রমণ হয়েছে। বুধবার এমন আশঙ্কার খবরি শুনিয়েছিল দিল্লির আর্মি রিসার্চ অ্যান্ড রেফারেল হাসপাতাল। তবে বৃহস্পতিবার কিছুটা হলেও স্বস্তি ছিল হাসপাতালের মেডিক্যাল বুলেটিন। 

সেনা হাসপাতাল বৃহস্পতিবার মেডিক্যাল বুলেটিনে জানিয়েছে, প্রণব মুখোপাধ্যায়ের অবস্থার সামান্য উন্নতি হয়েছে। তাঁর ভাইটাল ও ক্লিনিক্যাল প্যারামিটারগুলি স্থিতিশীল অবস্থাতে রয়েছে। বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা প্রতিনিয়ত তাঁকে নজরদারিতে রাখছেন। তবে  হাসপাতালের তরফে এও জানানো হয়েছে, এখনও প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ভেন্টিলেশন সাপোর্টেই রয়েছেন।

আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাজীব গান্ধীর নেওয়া সিদ্ধান্তগুলি, যার সুফল আজও ভোগ করছেন দেশবাসী

গত সপ্তাহের শুরুতে দিল্লির বাসভবনে বাথরুমে পড়ে গিয়ে মাথায় চোট পান প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি। তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রণববাবুর মাথায় অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন পড়ে। অস্ত্রোপচারের আগে প্রোটকল অনুযায়ী তাঁর করোনা টেস্ট হয়। তাতে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তবে তাঁর শরীরে করোনার কোনও উপসর্গ ছিল না। চিকিৎসকরা প্রথমে জানান, করোনার কারণে প্রণববাবুর ফুসফুসে কোনও সমস‌্যা ধরা পড়েনি। তবে অস্ত্রোপচারের পর তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। গভীর কোমায় আচ্ছন্ন হয়ে যান প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি। তাঁর মস্তিষ্কেও রক্তক্ষরণও হয়। ৮৪ বছরের প্রণববাবুকে ভেন্টিলেশন সাপোর্টে রাখার সিদ্ধান্ত নেয় আর্মি রিসার্চ অ্যান্ড রেফারেল হাসপাতাল। অপারেশনের পর এক সপ্তাহ কেটে গেলেও তিনি ভেন্টিলেশনেই আছেন।

আরও পড়ুন: ৭৬-এ রাজীব গান্ধী, আবেগঘন বার্তা পুত্র রাহুলের, স্মরণ করলেন মোদীও

প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির শারীরিক মাপকাঠি এখনও স্থিতিশীল বলেই জানাচ্ছে সেনা হাসপাতাল। সর্বক্ষণ তাঁকে নজরে রেখেছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। প্রণবাবুর সুস্থতা কামনায় তাঁর দেশের বাড়িতে চলেছে পুজো ও যজ্ঞ। এরমাঝেই বুধবার সকালে ছেলে অভিজিতের ট্যুইটে মিলেছিল আশার আলো। অভিজিত মুখোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, শারীরিক অবস্থা খুব ভাল না হলেও, চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। কিন্তু বেলা বাড়তেই হাসপাতাল জানায়, তাঁর শরীরিক অবস্থার আরও অবনিত হয়েছে।  প্রথম বাঙালি রাষ্ট্রপতিকে নিয়ে নতুন করে দুশ্চিন্তা শুরু হয় দেশবাসীর মধ্যে। বৃহস্পতিবার অবশ্য কিছুটা হলেও তাঁকে নিয়ে পাওয়া গেল স্বস্তির খবর।