ভোট প্রচারে কেরলে গিয়েই দিল্লির উপকণ্ঠে চলা কৃষক আন্দোলন আর কৃষি আইনের বিরুদ্ধে সুর চড়ালেন কংগ্রেস নেতা তথা ওয়াইনাডের সাংসদ রাহুল গান্ধী। দুদিনের সফরে ঠাসা কর্মসূচি রয়েছে রাহুল গান্ধীর। সোমবার একটি জনসভায় তিনি বলেন আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে পৌঁছে গেছে ভারতের কৃষক আন্দোলনের কথা। বিদেশে বসবাসকীরাই কৃষক আন্দোলন ও সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করছে। কিন্তু ভারত সরকার কৃষকদের সমস্যা সমাধানে আগ্রহী নয়। যতক্ষণ না ভারত সরকার এই আইন ফিরিয়ে নেবে ততক্ষণ কৃষকরা আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলেও মন্তব্য করেছেন রাহুল গান্ধী। প্রতিবাদী কৃষকদের পাশে থাকার বার্তা দিয়ে রাহুল গান্ধী ওয়াইনাডে একটি ট্র্যাক্টর মিছিলেও অংশ নিয়েছিলেন। ট্র্যাক্টর চালিয়েই তিনি জনসভায় পৌঁছেছিলেন। 


এদিন রাহুল গান্ধী আরও বলেন কৃষি ক্ষেত্রই একমাত্র ব্যবসা যা ভারতমাতার অন্তর্ভুক্ত। নতুন তিনটি আইন তৈরি হয়েছে ভারতীয় কৃষি ক্ষেত্রকে দুই থেকে তিন জন মানুষের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য।  সংসদে তাঁর হাম দো হামারে দো মন্তব্যের কথাও উল্লেখ করেন রাহুল গান্ধী। তিনি বলেন, সরকারের জন ব্যক্তিত্ব সরকারের বাইরে দুই জনের অংশীদারিত্ব নিয়েই চিন্তাভাবনা করছে। তাদের লাভবান করতেই ব্যস্ত। আর সেই কারণেই তিনি বলেছেব দেশে কৃষি ক্ষেত্রটি চার জন মানুষের মালিকানায় যাতে থাকে সেই ব্যবস্থাই করতে কেন্দ্রীয় সরকার। তিনি আরও বলেন নতুন তিনটি কৃষি আইন চালু হলে এই দেশের ৪০ শতাংশ কৃষি ক্ষেত্র ধ্বংসের পথে চলে যাবে। অন্যদিকে দেশের মানুষের খাদ্য সরবরাহের শৃঙ্খল পুরোপুরি ভেঙে পড়বে। 
 

কংগ্রেস নতুন তিনটি কৃষি আইনের বিরোধিতা করবে বলেও এদিন স্পষ্ট করে জানিয়েছেন রাহুল গান্ধী। তিনি আরও বলেন একটা সময় আইন প্রত্যাহার করতে বাধ্য হবে মোদী সরকার। ভারত মাতার ব্যবসা ও কাজের ক্ষেত্রকে নরেন্দ্র মোদী ও তাঁর দুই অথবা তিন জন বন্ধুর কুক্ষিগত হতে দেবেন না বলেও জানিয়েছেন রাহুল গান্ধী। এদিন কেরলে নারীদের ক্ষমতায়নের প্রশ্নেও সওয়াল করেল রাহুল গান্ধী।