কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের হস্তক্ষেপ করার অধিকার নেই। কাশ্মীর প্রসঙ্গ সবসময়েই ভারতের আভ্যন্তরীণ বিষয়। জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রদানকারী ৩৭০ ধারা এবং ৩৫এ ধারা বাতিলের সিদ্ধান্ত এবং জম্মু ও কাশ্মীর এবং লে-দুটি আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর এই প্রথমবার লাদাখ সফরে গেলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। 

 

সেখানে গিয়ে পাকিস্তানের উদ্দেশে রাজনাথ বলেন, কাশ্মীর কবে পাকিস্তানের কাছে ছিল যে, তারা এই নিয়ে এত কান্নাকাটি করে চলে? জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে কেন্দ্রের তরফে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, তাতে তার তীব্র প্রতিবাদ করেছে পাকিস্তান। পাকিস্তানের দাবি ছিল কাশ্মীর নিয়ে ভারত একেবারে বেআইনি কাজ করেছে। যার ফলস্বরূপ বিষয়টি নিয়ে পাকিস্তান বরাবরই আন্তর্জাতিক মহলের হস্তক্ষেপ দাবি করেছে। আর এই প্রসঙ্গকে তুলে ধরে কার্যত এমন মন্তব্য করলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। 

খাগড়াগড় বিস্ফোরণ কাণ্ডে দোষ স্বীকার করল ১৯ জন, সাজা ঘোষণা ৩০ অগাস্ট

লক্ষ্য সুস্থ ভারত গড়ে তোলা, জাতীয় ক্রীড়া দিবসে ফিট ইন্ডিয়া অভিযানের সূচনায় মোদী

দূষণমুক্ত ভারত গড়তে তৎপর মোদী সরকার, ২ অক্টোবর থেকে নিষিদ্ধ এইসব প্লাস্টিক সামগ্রী

এদিন লাদাখের লে-তে  ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশনের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এসে রাজনাথ আরও বলেন, কাশ্মীর সবসময়েই ভারতের অংশ। ভারত পাকিস্তানের সঙ্গে প্রতিবেশিসুলভ সুসম্পর্ক বজায় রাখতে আগ্রহী, কিন্তু তার জন্য ভারতে সন্ত্রাসের আবহ তৈরি করা তাদের বন্ধ করতে হবে। তিনি আরও বলেন যে, পাকিস্তান আলাদা রাষ্ট্র হওয়ার পর থেকে ভারত তাদের পরিচয়কেও সম্মান করেছে। কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে বরং পাক অধিক্ৃত কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতো জ্বলন্ত বিষয়গুলি নিয়ে চিন্তা ভাবনা করা।