তীব্র সংকটে ইয়েস ব্যাঙ্ক। বেসরকারি ব্যাঙ্কে হস্তপেক্ষ করল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ওব ইন্ডিয়া। এইটি নির্দেশিকা জারি করে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক জানিয়েছে আগামী তিশরা এপ্রিল পর্যন্ত এই ব্যাঙ্কে যাঁদের অ্যাকাউন্ট রয়েছে তাঁরা ৫০হজারারে বেশি টাকা তুলতে পারবেন না। ড্রাফট বা পে অর্ডারের ক্ষেত্রেও এই উর্দ্ধসীমা কার্যকর হবে ।  টাকা তোলা যাবে অসুস্থতা, পড়াশুনা বা বিয়ের জন্য। কিন্তু আগামী তেশরা এপ্রিল পর্যন্ত ব্যাঙ্কটি কোনও ঋণ দিতে পারবে না। তবে আগামী দিনে এই নিয়ন্ত্রণ শিথিল করা হবে বলেই সূত্রের খবর। ইয়েস ব্যাঙ্কের পরিচালন পর্যদও ভেঙে দেওয়া হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ব্যাঙ্ক চালানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে স্টেস্ট ব্যাঙ্কের প্রাক্তন ডেপুটি সিইও প্রশান্ত কুমারকে। তবে নির্দেশিকা জারি করে জানান হয়েছে ব্যাঙ্কের কুড়ি হাজার কর্মীকে দেওয়া হবে তাঁদের প্রাপ্য বেতন। 

আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাস LIVE Updates: জমায়েত বন্ধের নির্দেশ কেন্দ্রের, আক্রান্ত বেড়ে ৩১

ব্যাঙ্কের পুর্ণগঠন ও  আমানতকারীদের আস্থা ফেরানোর লক্ষ্যে চলছে দফায় দফায় বৈঠক। তবে ব্যাঙ্কের বোর্ড পুর্ণগঠন না হওয়া পর্যন্ত সমস্ত লেনদেন বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একটি রিপোর্টে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে ঋণ দেওয়ার কারণেই সমস্যায় পড়েছে ব্যাঙ্কটি। বহু চেষ্টা করেও পুঁজি জোগাড়ে ব্যর্থ ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ। বিনিয়োগকারীরা বন্ড গ্রহণ ও আমানত প্রত্যাহারের কারণেই ইয়েস ব্যাঙ্কের আর্থিক সংকট তৈরি হয়েছে। গত বছর থেকেই ব্যাঙ্কটি ক্ষতির মুখে পড়েছিল। মুলধন যোগাড়ের চেষ্টা করেও সফল হয়নি ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ। 

আরও পড়ুনঃ যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের মুখের উপর জবাব, পাক সেনাঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিল ভারত, দেখুন

আরও পড়ুনঃ আচমকা বরফে সাদা হয়ে গেল লখনউ-আগ্রার রাস্তা, এক বিকেলেই ব্যাপক ক্ষতি ফসলের

একটি সূত্রের খবর কেন্দ্র চাইছে এলআইসি ও স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া এই বেসরকারি ব্যাঙ্কের নিয়ন্ত্রণ হাতে নিক। স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া ও এলআইসি ইয়েস ব্যাঙ্কের ৪৯ শতাংশ শেয়ার অধিগ্রহণ করবে বলেই একটি সূত্র জানাচ্ছে। এই দুটি সংস্থা প্রতিটি শেয়ার কিনবে মাত্র দু টাকার বিনিময়। ইতিমধ্যেই পড়তির দিকে এসবিআই-এর শেয়ার। সূত্রের খবর দুটি সংস্থা ইয়েস ব্যাঙ্ককে পুনরুজ্জীবিত করতে প্রায় ৪৯০ কোটি টাকা ঢালবে। গত বছরই সংকটের মুখে পড়েছিল পঞ্জাব মহারাষ্ট্র কো-অপরেটিভ ব্যাঙ্ক। সেই সময়ই গ্রহকদের টাকা তুলোর ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। সমস্যায় পড়েছিলেন বহু মানুষ।  আগামী দিনে কো-অপরেটিভ ব্যাঙ্কের নিয়ম নীতি আরও শক্তিশালী করার চিন্তা করছে।