শুক্রবার ভোরে দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ৩ নম্বর টার্মিনালে একটি আরডিএক্স ভরা ব্যাগ মিলেছে। দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে রাত ১ টা নাগাত একটি ফোনকল আসে, তারপরই একটি সিআইএসএফ সদস্য অ্যারাইভাল টার্মিনালের ২ নম্বর গেটের কাছ থেকে ওই সন্দেহজনক ব্যাগটি উদ্ধার করেন। এই নিয়ে রাজধানীতে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

জানা গিয়েছে ব্যাগটি কালো রঙের একটি ট্রলি ব্যাগ। ঘটনাস্থল থেকে ব্যাগটিকে সরিয়ে একটি শীতল স্থানে রাখা হয়। এরপরই বিমানবন্দরের পুলিশ যাত্রীদের বেশ কিছুক্ষণ অ্যারাইভাল টার্মিনালে আটকে রাখে। এর ফলে যাত্রীদের  মধ্যে আতঙ্কও ছড়ায়।

এরপর খবর দেওয়া হয় বম্ব ডিসপোজাল স্কোয়াডে। এলাকাটি ঘিরে ফেলে বেশ কয়েক ঘন্টার জন্য তিন নম্বর টার্মিনালের বাইরের রাস্তায় গাড়ি চলাচল বন্ধ রাখা হয়। বম্ব ডিসপোজাল স্কোয়াড এসে ব্যাগটির এক্সরে পরীক্ষা-সহ বেশ কিছু পরীক্ষানিরীক্ষা করে। কিন্তু বাইরে থেকে ব্যাাগের ভিতরে কী আছে তা স্পষ্টভাবে বোঝা যায়নি। তবে বম্ব ডিটেক্টর যন্ত্র ও পুলিশ কুকুর ইঙ্গিত দিয়েছে ব্যাগটির ভিতর বিস্ফোরক রয়েছে। বম্ব স্কোয়াড জানিয়েছে তাঁদের প্রাথমিক পরীক্ষায় মনে হয়েছে ব্যাগটিতে আরডিএক্স টাসা রয়েছে।

ভোর তিনটে নাগাত একটি থ্রেট কনটেনমেন্ট গাড়িতে করে বিস্ফোরক ভরা ব্যাগটি একটি নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। অ্যারাইভাল টার্মিনাল এলাকাটির ববিশদ তল্লাশীর পর ফের যাত্রী চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বিমানবন্দরের বাইরে যানবাহন চলাচলও স্বাভাবিক হয়ে গিয়েছে।

তবে ব্যাগের ভিতরে শুধুই বিস্ফোরক রয়েছে না আইইডি, সেই বিষয়টা এখনও স্পষ্ট নয়। আগামী ২৪ ঘন্টা ব্যাগটি কড়া নজরে রাখা হচ্ছে। স্বাভাবিক কারণেই দিল্লি বিমানবন্দরের নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ পরীক্ষা করে ও যে ফোন নম্বর থেকে ফোন করা হয়েছিল, সেই নম্বরের সূত্র ধরে তদন্ত করা হচ্ছে।