সাতদিন। নির্ভয়া কাণ্ডে দোষী চারজনকে মৃত্যুদণ্ড এড়াতে তিহার জেল কর্তৃপক্ষ সাতদিনই সময় দিল। জেলের তরফে এক নোটিশ জারি করে বলা হয়েছে, দোষী চারজনের হাতে আর কোনও আইনি প্রতিকার অবশিষ্ট নেই। তবে এখনও প্রাণ রক্ষা করার শেষ একটা সুযোগ পাবে তারা। রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা ভিক্ষা করার জন্যই তাদের এই সময়টুকু দেওয়া হয়েছে। এরপরই তাদের প্রাণদণ্ড কার্যকর করা হবে। তবে দোষীদের আইনজীবীরা বলছেন এখনও লড়াই শেষ হয়ে যায়নি।

নির্ভয়া কাণ্ডের প্রধান দোষী রাম সিং কারাগারেই গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছিল। আরেক দোষী অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় তিন বছর একটি সংশোধানাগারে বন্দি রয়েছে। বাকি চারজন - মুকেশ (৩১), পবন গুপ্ত (২৪), বিনয় শর্মা (২৫) এবং অক্ষয়কুমার সিং (৩৩)-কে ২০১৩ সালে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিল দিল্লি হাইকোর্ট ও ট্রায়াল কোর্ট। এই রায়ের বিরুদ্ধে তাদের আবেদন ২০১৮ সালের ৯ জুলাই নাকচ করে দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। তারপর থেকে প্রায় দেড় বছর পার হয়ে গিয়েছে। কিন্তু এখনও তাদের মৃত্যদণ্ড কার্যকর করা হয়নি। এইবার, সেই আইনি প্রক্রিয়া শুরু হল। মৃত্যু দণ্ডাদেশ পাওয়ার জন্য জেল কর্তৃপক্ষকে একটি ট্রায়াল কোর্টে আবেদন করতে হবে।  

তবে ধর্ষকদের আইনজীবীরা এখনই হাল ছাড়ছেন না। মুকেশ-এর আইনজীবী এমএল শর্মা জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টে জেল কর্তৃপক্ষের এই নোটিশকে তিনি চ্যালেঞ্জ করবেন। তিনি এবং পবন, বিজয় ও অক্ষয়-এর আইনজীবী এপি সিং দুজনেই জানিয়েছেন তাঁরা সুপ্রিম কোর্টের আগের রায়ের বিরুদ্ধে কিউরেটিভ পিটিশন দায়ের করবেন। এর জন্য তিন বছর হাতে সময় পাওয়া যায় বলে দাবি তাঁদের। কাজেই জেল কর্তৃপক্ষ এমন নোটিশ দিতে পারে না, এমনটাই বলছেন দুই আইনজীবী।